ইয়াবা কিনতে গিয়ে গুলিতে ‘মাদক কারবারি’ নিহত

কক্সবাজারের টেকনাফের হোয়াইক্যং ইউনিয়নের দৈংগাকাটা এলাকায় ইয়াবা কিনতে গিয়ে পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে মো. রাসেল নামে এক যুবক নিহত হয়েছেন।
শনিবার রাত সাড়ে ১২টার দিকে উপজেলার দৈংগাকাটা এলাকার আমির হামজার বাড়ির সামনে একটি পাহাড়ের পাদদেশে এ ঘটনা ঘটে। এ সময় তিন পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন। তারা হলেন, এসআই বোরহান উদ্দিন ভূঁইয়া, কনস্টেবল হাবিব হোসেন ও সজীব সরকার।
নিহত মাদক কারবারি রাসেল নারায়ণগঞ্জ জেলার উত্তর লক্ষনঘোনা এলাকার ফয়েজ আহাম্মদের ছেলে।
টেকনাফ মডেল থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাশ বলেন, গতরাত থানা পুলিশের একটি দল টেকনাফের হোয়াইক্যং দৈংগাকাটা এলাকার বেশ কয়েকটি মামলার পলাতক আসামি আমির হামজার বাড়ির সামনে বাউিজাইঅং চাকমার পাহাড়ের পাদদেশে অভিযানে যায়। এ সময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে অস্ত্রধারী দৃষ্কৃতিকারীরা গুলি ছুড়তে থাকে। আত্মরক্ষার্থে পুলিশও ৩৮ রাউন্ড গুলি করে। গোলাগুলির শব্দ শুনে ঘটনাস্থলে স্থানীয় লোকজন এগিয়ে আসতে থাকলে পুলিশ গুলি করা বন্ধ করে। গোলাগুলির একপর্যায়ে অস্ত্রধারী দৃষ্কৃতিকারীরা গুলি করতে করতে পাহাড়ের জঙ্গলের দিকে পালিয়ে যায়।
পরে স্থানীয়দের উপস্থিতিতে ঘটনাস্থল থেকে একজনকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পাওয়া যায়। দেহ তল্লাশিকালে তার শার্টের পকেটে ছবি সম্বলিত একটি জাতীয় পরিচয়পত্র পাওয়া যায়। গুলিবিদ্ধ অবস্থায় উদ্ধার করে টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়ার পর কক্সবাজারে নেওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়।
ওসি প্রদীপ আরও বলেন, নিহত রাসেল টেকনাফের আমির হামজার কাছ থেকে ইয়াবা কিনতে আসছিল। বন্দুকযুদ্ধের পর আশপাশ এলাকায় তল্লাশি চালিয়ে পাঁচ হাজার ইয়াবা, একটি দেশীয় এলজি, ৫ রাউন্ড শর্টগানের তাজা কার্তুজ এবং ৯ রাউন্ড কার্তুজের খোসা জব্দ করা হয়।
নিহত রাসেল একজন অস্ত্রধারী ও তালিকাভুক্ত মাদক কারবারি। তার বিরুদ্ধে মাদক, অস্ত্রসহ একাধিক মামলা রয়েছে। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

Leave a Reply

%d bloggers like this: