কক্সবাজারের জন্য ১ কোটি ৮০ লাখ ইউরো দেবে ইইউ

রোহিঙ্গা শরণার্থী ও তাদের আশ্রয় দেওয়া স্থানীয়দের জীবনে স্থিতিশীলতা আনতে কক্সবাজার জেলার জন্য ১ কোটি ৮০ লাখ ইউরো সহায়তা দেবে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)।
বৃহস্পতিবার (২০ জুন) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে জাতিসংঘের শিশু বিষয়ক সংস্থা ইউনিসেফ। এর আগে বাংলাদেশে রোহিঙ্গা ও তাদের আশ্রয় দেয়া স্থানীয়দের সহায়তায় ইউনিসেফকে ২ কোটি ৪৮ লাখ ইউরো সহায়তা দিয়েছে ইইউ।
সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ইইউ-এর সহায়তায় ইউনিসেফের ৩ বছর মেয়াদি প্রকল্পে ২ লাখ ৮৮ হাজার শিশু ও পরিবার উপকৃত হবে। এ প্রকল্পে পুষ্টি, পানি, স্যানিটেশন ও স্বাস্থ্যবিধি, শিক্ষা এবং শিশু সুরক্ষায় গুরুত্ব দেওয়া হবে।
বাংলাদেশে ইউনিসেফের প্রতিনিধি তোমো হোজুমি বলেন, ‘রোহিঙ্গা ও বাংলাদেশি শিশু, কিশোর-কিশোরী ও তাদের পরিবারের স্থিতিশীলতা নিশ্চিত করতে সহায়তা করবে এই প্রকল্প।’
তিনি বলেন, ‘গত দেড় বছরে ইইউ’র মতো অংশীদারদের সহযোগিতায় আমরা মানবিক সহায়তা কার্যক্রম বেশ জোরদার করেছি। তবে পরিস্থিতি এখনও সংকটময়। কেননা, বাংলাদেশের দরিদ্রতম ও সবচেয়ে ঝুঁকির মুখে থাকা জেলাগুলোর একটি কক্সবাজার। এখনও জেলাটির ১২ লাখ মানুষের মানবিক সহায়তা প্রয়োজন।’
বাংলাদেশে ইইউ’র রাষ্ট্রদূত রেন্সজে তিরিংক জানান, কক্সবাজারের ২৩ লাখ মানুষের প্রায় ৩৩ শতাংশ দারিদ্র্যসীমার নিচে বাস করে। প্রাথমিক শিক্ষা সমাপ্তির হার ৫৫। ১৮ বছর হওয়ার আগেই অর্ধেকের বেশি মেয়ের বিয়ে হয়ে যায়। শিশুশ্রমে জড়িত প্রায় ৫০ হাজার শিশু। প্রতি দুটি শিশুর একটি খর্বাকৃতির হচ্ছে। এছাড়া মৌসুমী বৃষ্টিপাতের কারণে ঘূর্ণিঝড়, বন্যা ও ভূমিধসের মতো প্রাকৃতিক দুর্যোগ এবং জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবজনিত কারণে কক্সবাজার অন্যতম ঝুঁকিপূর্ণ।
ইইউ’র রাষ্ট্রদূত বলেন, ‘শরণার্থী সংকটের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত সবার জন্য আরও ভালো একটি ভবিষ্যৎ নিশ্চিত করতে আমাদের আরও কাজ করতে হবে। এই কৌশলগত সহায়তার মাধ্যমে আমাদের লক্ষ্য হচ্ছে রোহিঙ্গা ও বাংলাদেশি কমিউনিটিগুলোর জন্য মানবিক ও উন্নয়নমূলক কার্যক্রমের ধারাবাহিকতা নিশ্চিত করা।’

Leave a Reply

%d bloggers like this: