ছাগল ধর্ষণের দায়ে পুলিশ কনস্টেবল ক্লোজ

মাঠে বেধে রাখা ছাগীর সাথে বিকৃত যৌনাচার করার অভিযোগে ঝিনাইদহ সদর উপজেলার ডাকবাংলা পুলিশ ক্যাম্পের কনস্টেবল মিজানুর রহমানকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। শুক্রবার দুপুরে তার বিরুদ্ধে ছাগল বলাৎকার করার অভিযোগ ওঠে। ছাগল মালিক ঝিনাইদহ ডাকবাংলা আব্দুর রউফ ডিগ্রি কলেজ সংলগ্ন মাগুরা পাড়ার মোঃ রুবেলের স্ত্রী মোছাঃ ইয়াসমিন অভিযোগ করেন, “আমি প্রতিদিনের ন্যায় ছাগল খুটি মেরে এসেছিলাম। সেখানে ডাকবাংলা কলেজের অব্যবহৃত বাথরুম পড়ে আছে।
দুপুর ২ টার দিকে হঠাৎ ছাগলের চিৎকার শুনে আমি ছুটে যায়। গিয়ে দেখি ক্যাম্পের এক পুলিশ আমার ছাগলের সাথে খারাপ কাজে লিপ্ত। সে আমাকে দেখে খুব তাড়াতাড়ি পকেট থেকে মোবাইল ফোন বের করে কানে ধরে কথা বলার ভান করে ক্যাম্পের ভেতর ডুকে পড়ে। সাথে সাথে আমরা ক্যাম্পে যেয়ে বিষয়টা তাদের কাছে জানালে তারা সবাই আমাদের চুপ থাকতে বলে এবং জানান যে, আমরা এর বিচার করবো। এ বিষয়ে ক্যাম্প ইনচার্জ মোঃ তৌহিদুল ইসলাম বলেন, মিজানকে পুলিশ লাইনে ক্লোজ করা হয়েছে। তবে কি কারণে হয়েছে তা জানি না। ওসি মিজানুর রহমান খান বিষয়টি সম্পর্কে এড়িয়ে যান।
অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মিলু মিয়া বিশ্বাসও এ বিষয়ে বলতে বলতে রাজি হননি। এ ব্যাপারে কনস্টেবল মিজানুর রহমানের মুঠোফোনে একাধিকবার ফোন করেও তিনি ফোন রিসিভ করেন নি। তবে এলাকার চেয়ারম্যান কাজী নাজির উদ্দীন ঘটনাটি লোকমুখে শুনেছেন বলে জানান। বিষয়টি নিয়ে মাগুরাপাড়া গ্রামে ছি ছি রব পড়ে গেছে। মানুষের মুখে মুখে এখন এই অনৈতিক কাজের গল্প।

Leave a Reply

%d bloggers like this: