প্রধানমন্ত্রীর চীন সফরে প্রাধান্য পাবে রোহিঙ্গা ইস্যু

আগামী মাসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার চীন সফরকালে রোহিঙ্গা ইস্যু প্রাধান্য পাবে বলে মন্তব্য করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে এম আব্দুল মোমেন।
সোমবার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে তিনি এ কথা বলেন।
পররাষ্ট্রমন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর সফর নিয়ে আমরা কাজ করছি। জুলাই মাসের প্রথম সপ্তাহে এই সফর হবে বলে আমরা আশা করছি। সফরকালে রোহিঙ্গা সংকট প্রাধান্য পাবে। আমরা প্রত্যাশা করছি এর পরিপ্রেক্ষিতে রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেওয়ার জন্য মিয়ানমারের ওপর চাপ বাড়বে। ’
পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘রোহিঙ্গা সংকটের শুরু থেকেই মিয়ানমারের সঙ্গে এই সংকট দ্বিপক্ষীয়ভাবে সমাধানের পরামর্শ দিয়ে আসছে চীন।’
তিনি বলেন, ‘মিয়ানমার কখনো বলেনি যে, তারা তাদের নাগরিকদের ফিরিয়ে নেবে না। তারা তাদের নাগরিকদের ফিরিয়ে নেওয়ার জন্য প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।’
ইরানে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত এ কে এম মুজিবর রহমান ভূঁইয়া ও লেবাননে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত আবদুল মোতালেব সরকারকে ঢাকায় ফিরিয়ে আনা বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘স্বাভাবিকভাবে দুই বছর পর রাষ্ট্রদূতদের পদায়নের বিষয়ে নতুন করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সে হিসাবে এটি নিয়মিত একটি প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবেই হচ্ছে বলা যায়। ’
যদিও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, নৈতিক স্খলনের অভিযোগে এ কে এম মুজিবর রহমান ভূঁইয়াকে এবং আর্থিক অনিয়মের অভিযোগে আবদুল মোতালেব সরকারকে দেশে ফিরিয়ে আনা হচ্ছে। গত এপ্রিলে তাদের ঢাকায় ফিরে আসার নির্দেশ দেওয়া হয়।
ইরানে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূতের বিরুদ্ধে অভিযোগের তদন্তের জন্য জার্মানিতে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত ইমতিয়াজ আহমেদকে গত মার্চে তেহরানে পাঠানো হয়।
অন্যদিকে, লেবাননে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূতের বিরুদ্ধে অভিযোগের তদন্তের জন্য গত বছরের সেপ্টেম্বরে বৈরুতে পাঠানো হয় চীনে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত এম ফজলুল করিমকে। দুটি কমিটিই তদন্ত শেষে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে তাদের প্রতিবেদন জমা দেয়।
এদিকে, এ কে এম মুজিবর রহমান ভূঁইয়ার পরিবর্তে ইরানে একজন পেশাদার কূটনীতিক এবং লেবাননে প্রতিরক্ষা বাহিনীর এক উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাকে নিয়োগের প্রস্তুতি চলছে বলে সূত্রে জানা গেছে।

Leave a Reply

%d bloggers like this: