বিল গেটসের ‘বড় ভুল’ উইন্ডোজ ফোন

নিজের সবচেয়ে ‘বড় ভুল’ সম্পর্কে জানালেন মাইক্রোসফটের প্রতিষ্ঠাতা বিল গেটস। সাম্প্রতিক দুই সাক্ষাৎকারে বিষয়টি তুলে ধরেন। প্রতিদ্বন্দ্বী প্রতিষ্ঠান অ্যাপলের সঙ্গে মোবাইল অপারেটিং সিস্টেম নিয়ে হারার প্রসঙ্গে তিনি ভুলের ব্যাখ্যা দেন।
গেটসের মতে, সফটওয়্যার জগতে বিশেষ করে প্ল্যাটফর্মের ক্ষেত্রে যারা বিজয়ী তারা পুরো বাজার দখলে নেয়। সেখানেই নিজের বড় ভুলের প্রসঙ্গটি আসে। অ্যান্ড্রয়েড প্ল্যাটফর্মটির মতো হয়ে উঠতে পারেনি মাইক্রোসফট। যার কারণ ‘ভুল ব্যবস্থাপনা’।
ভিলেজ গ্লোবালকে আরও জানান, নন-অ্যাপল ফোন প্ল্যাটফর্ম হিসেবে অ্যান্ড্রয়েডকে মান ধরা হয়। সেই হিসেবে নন-অ্যাপল অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে বাজারে আর কারো সুযোগ নেই।
বহু বছর ধরে কম্পিউটার জগতে অ্যাপলকে হারিয়ে নেতৃত্বের আসনে ছিল মাইক্রোসফট। কিন্তু স্মার্টফোন যুগের সঙ্গে মানিয়ে নিতে ব্যর্থ হয়। ২০০০ সালে নিজেদের মোবাইল অপারেটিং সিস্টেম নিয়ে বাজারে আসে মাইক্রোসফটের উইন্ডোজ ফোন। এর সাত বছর আগে আছে অ্যাপলের আইফোন। তার পরের বছর ২০০৮ সালে গুগল নিয়ে আসে অ্যান্ড্রয়েড প্ল্যাটফর্ম। কিন্তু অ্যাপল ও গুগলের আগে ‍শুরু করেই পেছনে পড়ে যায় মাইক্রোসফট।
এদিকে সোমবার ওয়াশিংটন ডিসির ইকোনমিক ক্লাবে দেওয়া সাক্ষাৎকার গেটস জানান, এন্ট্রি ট্রাস্ট ট্রায়ালের মুখোমুখি হওয়াও ছিল ক্ষতির কারণ। এমনকি মোবাইলের জন্য তারা যথাযথ কর্মীও নিতে পারেনি। অথচ মোবাইলের জনপ্রিয় বাজারে তাদেরই সেরাটি দেওয়ার কথা ছিল।
২০টি রাজ্য, ডিস্ট্রিক্ট অব কলম্বিয়া ও যুক্তরাষ্ট্রের বিচার বিভাগের এক মামলার ফলাফল ছিল এন্ট্রি ট্রাস্ট ট্রায়াল। যেখানে বেআইনি, প্রতিযোগিতাবিরোধী ও অননুমোদিত আচরণের অভিযোগ আনা হয় মাইক্রোসফটের বিরুদ্ধে।
গেটস স্বীকার করে নেন, তাদের ভুল পদক্ষেপের কারণে শতকোটি ডলার চলে গেছে গুগলের পকেটে। এক জরিপ জানায়, বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রে স্মার্টফোন প্ল্যাটফর্মের জগতে সবচেয়ে জনপ্রিয় অ্যান্ড্রয়েড। ২০১৮ সালের প্রথম ছয় মাসে সারা বিশ্বে বিক্রীত ৮৫ ভাগ স্মার্টফোনই ছিল অ্যান্ড্রয়েড নির্ভর।
তবে বিল গেটস জানান, উইন্ডোজ ও অফিসের ক্ষেত্রে তারা খুবই শক্তিশালী। এখানে শীর্ষ প্রতিষ্ঠান মাইক্রোসফট।
এবারই প্রথম নয়। ২০১৭ সালে উইন্ডোজ কম্পিউটারের কন্ট্রোল-অল্টার-ডিলিট ফ্যাংশনের জটিলতা নিয়ে দুঃখ প্রকাশ করেন গেটস। মাইক্রোসফটের আরেকটি ভুল পদক্ষেপ হিসেবে ধরা হয় উইন্ডোজ ভিসতাকে। ব্যবহারকারীদের অপছন্দের উইন্ডোজ সংস্করণ এটি। সঙ্গে আছে উইন্ডোজ মি ও জুন মিউজিক প্লেয়ার।

Leave a Reply

%d bloggers like this: