ভারতের কাছে পাত্তাই পেল না উইন্ডিজ

উইন্ডিজের জন্য ম্যাচ ছিলো ডু অর ডাই ম্যাচ। জিতলে হয়ত টুর্নামেন্টর টিকে থাকার একটা সম্ভাবনা ছিলো। কিন্তু ভারতের কাছে দলটি পাত্তাই পেল না। টস জিতে ব্যাট করতে নেমে মাঝারি মানে লক্ষ্য দেয় বিরাট কোহলিরা। সেটাকেই পাহাড়সম বানিয়ে ম্যাচটা হেরে যায় ১২৫ রানে।
এদিন উইন্ডিজের কেউই ভারতীয় বোলিংয়ের সামনে দাড়াতে পারেনি। সামি-বুমরাদের বোলিং তোপে ২৬৯ রানের টার্গেটে খেলতে নেমে ১৪৩ রানে অলআউট হয় গেইলরা।
দলীয় ১৬ রানে দুই উইকেট হারিয়ে ফেলার পর বড় কোনো পার্টনারশিপ গড়তে পারছে না ক্যারিবীয়রা। তৃতীয় উইকেট জুটিকে সর্বোচ্চ ৫৫ রানের পার্টনারশিপ গড়ে উইন্ডিজ। দলীয় ৭১ রানের মাথায় সুনিল আমরিজ আউট হওয়ার পর নিয়মিত বিরতিতে উইকেট পড়তে থাকে। ৩৪.২ ওভারে সবকটি উইকেট হারিয়ে ১৪৩ রান করে উইন্ডিজ। উইন্ডিজের পক্ষে সর্বোচ্চ সুনিল আমরিজ ৩১ রান করেন।
এর আগে প্রথমে ব্যাট করে ৫০ ওভারে সাত উইকেটে ২৬৮ রান করেছে ভারত। সর্বোচ্চ ৭২ রান করেন বিরাট কোহলি। এছাড়া ধোনি অপরাজিত ছিলেন ৫৬ রানে। হার্দিক পান্ডিয়া করেন ৪৬ রানে আউট হন।
ধোনি-পান্ডিয়ার জুটিতেই ভারত এই সংগ্রহ করতে সমর্থ হয়। ওপেনার রোহিত শর্মা বেশি সময় টিকতে পারলেন না। কোহলিকে দ্রুতই নেমে জুটি গড়তে হয় রাহুলের সঙ্গে।
কোহলি-রাহুলের জুটিটা থিতু হতে দেননি হোল্ডার। ৪৮ রানে হোল্ডারের বলে বোল্ড হন রাহুল। কোহলিকে ৭২ রানে ফেরান হোল্ডার।
রোহিত শর্মাকে মাত্র ১৮ রানে ফিরিয়ে দেন কেমার রোচ। ষষ্ঠ ওভারে প্রথম উইকেট পড়ে ভারতের। রাহুল আউটের পর মাঠে আসা বিজয় শঙ্করও বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি। ১৪ রানেই তাঁকে বিদায় করেন রোচ। এরই কিছু পরে কেদার যাদবকেও আউট করে দেন কেমার রোচ। শঙ্কর ও যাদব দুজনই ক্যাচ দেন উইকেটরক্ষক শাই হোপকে।
ধোনি ও হার্দিক পান্ডিয়া এসে জুটি গড়েন। শেষদিকে দ্রুত রান তোলেন ওই দুইজন। সাত ওভারে ১৮ রান দিয়ে তিনটি উইকেট নিয়েছেন রোচ।
ছয় ম্যাচের চারটিতেই হেরেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। সেমিফাইনালে খেলার সম্ভাবনা নেই বললেই চলে। তবুও ওয়েস্ট ইন্ডিজ লড়াকু দল। ব্রাথওয়েট যেভাবে লড়েছেন নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে, তা অসাধারণ।
অন্যদিকে, এখন পর্যন্ত অপরাজিত আছে ভারত। পাঁচটি ম্যাচের চারটিতেই জয় পেয়েছে। একটি ম্যাচ ভেসে গেছে বৃষ্টিতে। ৯ পয়েন্ট নিয়ে পয়েন্ট তালিকায় ভারতের অবস্থান এখন তৃতীয়। আজকের ম্যাচে জয় পেলে সেমিফাইনাল নিশ্চিতের দিকে আরো এক ধাপ এগিয়ে যাবেন কোহলিরা।
রোহিত শর্মা, রাহুল, কোহলিদের সমন্বয়ে ভারতের ব্যাটিংটা খুব শক্তিশালী। তবে আফগানিস্তানের সঙ্গে মাত্র ২২৪ রানেই গুটিয়ে যায় দলটি। পরে শামির দুর্দান্ত বোলিংয়ে আফগানিস্তান কোনো অঘটন ঘটাতে পারেনি।

Leave a Reply

%d bloggers like this: