মির্জাগঞ্জে তালাক দেয়ায় স্ত্রীর দু’হাত কেটে দিলো স্বামী

মির্জাগঞ্জে স্বামীকে তালাক দেয়ায় ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে স্ত্রী’র দু’হাত কেটে দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘাতক স্বামীর হুমকিতে বরিশাল হাসপাতালে চিকিৎসাও নিতে না পারায় প্রায় বিচ্ছিন্ন দু’হাত নিয়ে গতকাল বৃহস্পতিবার পুনরায় মির্জাগঞ্জ উপজেলা হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন সুমি আক্তার। ঘটনাটি ঘটেছে গত সোমবার গভীর রাতে উপজেলার গাজীপুরা গ্রামে।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গাজীপুরা গ্রামের মো. হালিম ভান্ডারীর কন্যা সুমি আক্তার (২১) কে চার বছর আগে পাশ্ববর্তী বেতাগী উপজেলার ঝোপখালী গ্রামের বারেক সিকদারের ছেলে মন্টু সিকদারের সাথে বিয়ে দেয়া হয়। বিয়ের কিছুদিন যেতে না যেতেই স্বামী মন্টু সিকদার ৫০ হাজার টাকা যৌতুক দাবী করেন।
হত দরিদ্র সুমির মা অন্যের বাসায় কাজ করেন, ভূমিহীন বৃদ্ধ বাবা হালিম ভান্ডারী দিন আনে দিন খায়। যৌতুকের দাবীকৃত টাকা দিতে না পারায় স্ত্রী সুমি আক্তারের উপর কথায় কথায় নির্যাতন চালাতো তার স্বামী মন্টু। এক পর্যায়ে ১ বছর আগে সুমি ও তার ৩ বছরের ছেলে নয়নকে নিয়ে তার বাবার বাড়িতে চলে আসে। এর কিছুদিন পর পেটের দায়ে সে তার মা আলেয়াকে নিয়ে ঢাকায় একটি গার্মেন্সে চাকরী নেয়।
আহত সুমি আক্তার জানান, স্বামীর নির্যাতন সইতে না পেরে ঢাকায় একটি গার্মেন্সে চাকরী নেই। মা এবং ৩ বছরের ছেলে সন্তান নিয়ে কোন রকম দিন কাটাই। এদিকে স্বামী মন্টু মোবাইল ফোনে নানা রকম হুমকী ধামকী দেয়ায় মাস খানেক আগে আমি তাকে তালাক পাঠাই। ঈদের ছুটিতে গত রবিবার বাড়িতে আসলে খবর পেয়ে মন্টু সোমবার গভীর রাতে ঘরে প্রবেশ করে ধারালো অস্ত্র দিয়ে এলোপাতারি কুপিয়ে গুরুতর জখম করে পালিয়ে যায়।

Leave a Reply

%d bloggers like this: