রামুতে মুদি দোকানদারকে ইয়াবা দিয়ে ফাঁসাতে গিয়ে পুলিশের জালে ষড়যন্ত্রকারী যুবক


অাবুল কাশেম সাগর,রামু কক্সবাজারের রামু উপজেলার কাউয়ারখোঁপ ইউনিয়নের লট উখিয়ারঘোনা টেইল্যা পাড়া গ্রামের এক মুদির দোকানদারকে ইয়াবা দিয়ে ফাঁসাতে গিয়ে পুলিশের হাতে অাটক হয় ষড়যন্ত্রকারী  নুর অালম ( ৩৭) নামে এক যুবক।  এ ঘটনায় রামু থানা
 পুলিশের পিএসঅাই বাদী হয়ে মাদকের মামলা রুজু হয়েছে। ঘটনায় অাটক নুরুল অালম একই এলাকার অালী অাকবরের ছেলে। রামু থানা সূত্রে জানা যায়, ২৮ই জুন শুক্রবার রাত ৮টার দিকে জাতীয় জুরুরী সেবা ৯৯৯ নাম্বারে ফোন করে রামু উপজেলার কাউয়ারখোঁপ ইউনিয়নের টেইল্যা পাড়া এলাকায় মুদি দোকানদার মমতাজ মিয়া ওরফে ভূট্টোর দোকানের বিস্কুটের রেকে অবৈধ মাদকদ্রব্য ইয়াবা ট্যাবলেট রয়েছে মর্মে অভিযোগ জানান মোবাইল নং  ০১৮৫৫৭৬১৩১১ হতে ব্যবহারকারী কাজল নামে এক যুবক।  ঘটনার ব্যাপারে জরুরী সেবা থেকে রামু থানাকে বিষয়টি অবহিত করেন। পরবর্তী রামু থানা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ এর নির্দেশে পিএসঅাই( নিঃ) কিশোর বড়ুয়াকে রামু থানা জিডি নং ১২১৩ মূলে সঙ্গীয় ফোর্সসহ ২৮ জুন রাত সাড়ে ৯টায় ঘটনাস্থলে অভিযান পরিচালনা করে অভিযুক্ত থানা স্থানীয় লোকজনকে সাথে নিয়ে দোকানে তল্লাসী করে ৫০টি ইয়াবা ট্যাবলেট পাওয়া যায়। ঘটনাস্থলে অভিযুক্ত দোকানদার ভূট্টোকে জিজ্ঞেসাবাদ করিলে সে মাদক ও ব্যবসার সাথে কোনভাবেই জড়িত নেই বলে জানান। পরবর্তীতে স্থানীয় ব্যক্তিবর্গদের উপস্থিতে ব্যাপক জিজ্ঞেসাবাদে স্থানীযরা অভিযুক্ত মমতাজ মিয়া ওরফে ভূট্টোকে স্থানীয় ছৈয়দ নূর গংদের সাথে ব্যক্তিগত ঝগড়া হতে ষড়যন্ত্রমূলকভাবে তাকে ( ভূট্টোকে ফাঁসাতে চেষ্টা করছে বলে তথ্য দিয়েছেন। ঘটনাস্থল থেকে নুর অালম নামে একজনকে অাটক করে তার মোবাইল ফোনের কল লিষ্ট তল্লাসী করে ফাঁসানো ঘটনার অাসল রহস্য উদঘাটন হতে শুরু করে। পুলিশের জিজ্ঞেসাবাদে নুর অালম পূর্ব ঘটনার জের ধরে কাজলের সহযোগিতায় তিনি নিরহ দোকানদার ভূ্ট্টোকে নিষিদ্ধ ইয়বা বড়ি দিয়ে ফাঁসতে চেয়েছিলেন বলে স্বিকার করেছেন। ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে রামু থানা পুলিশ প্রদর্শক ( তদন্ত) এইচ এম মিজানুর রহমান জানান, ব্যক্তিগত কলহ থেকে প্রতিপক্ষকে ইয়াবা দিয়ে ফাঁসানোর ঘটনায় সংশ্লিষ্ট ধারায়  মামলা রুজু হয়েছে। উক্ত ঘটনার সাথে জড়িত থাকা এক জনকে অাটক করা হয়েছে এবং ঘটনায় জড়িত অন্যান্য অাসামীদের অাটকের চেষ্টা চলছে। এদিকে রামু থানা পুলিশের এ ধরণের মহৎ কাজের জন্য এলাকাবাসীসহ সর্বমহলে অালোচনা শুরু হয়েছে। রামু থানা পুলিশের জনকল্যাণ মূলক কাজে অাগামীতে নিরহ মানুষকে হয়রানি বন্ধে উদাহারণ হিসেবে থাকবে বলে মনে করছেন সুশীল সমাজ।  

Leave a Reply

%d bloggers like this: