ইমরান খানকে বিজেপির অনলাইন সদস্য করায় অভিযুক্ত আটক

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের ছবি ও নাম ব্যবহার করে বিজেপির অনলাইন সদস্য হিসেবে কার্ড তৈরি ও ফেসবুকে প্রচার করার কারণে চল্লিশ বছরের গোলাম ফরিদ শেখকে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে।
গুজরাটের আহমেদাবাদ পুলিশের সাইবার ক্রাইম ব্রাঞ্চের একটি ইউনিট শনিবার অভিযুক্ত ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করে।
অভিযুক্ত ব্যক্তি ইমরান খানের পাশাপাশি ধর্ষণের অভিযোগে অভিযুক্ত গুরমেট রাম রহিম সিং ও আশারাম বাপুর ছবি ব্যবহার করে বিজেপির অনলাইন সদস্য করে।
ভারতে দ্বিতীয় বারের মতো ক্ষমতায় আসার পরে ক্ষমতাসীন বিজেপি দল দেশে অনলাইনে সদস্য হিসাবে নাম নথিভুক্তকরণ শুরু করে। তবে এ বার বিজেপির অনলাইন সদস্যের তালিকায় জ্বলজ্বল করছে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের নাম ও ছবি! এবং এ সব ছবি ভাইরালও হয়েছে।
বিজেপির সদস্য হিসাবে ইমরান খানের ডিজিটাল পরিচয়পত্র বেশ ক’দিন ধরেই সোশ্যাল মিডিয়ার দৌলতে অনেকের মোবাইলে ছড়িয়ে পড়েছে। যেখানে পরিষ্কার তাঁর নাম এবং দেশ লেখা। হাত ঘুরে সে পরিচয়পত্র আমদাবাদ শহরে বিজেপির সাধারণ সম্পাদক কমলেশ পটেলের মোবাইলে এসেও পৌঁছয়। বিজেপি সদস্য হিসাবে পাক প্রধানমন্ত্রীর নাম দেখে তাজ্জব হয়ে যান তিনি। পুলিশের কাছে এফআইআর দায়ের করেন। তার পরই অবশ্য সবটা খোলসা হয়।
তদন্তে পুলিশ জানতে পারে, আমদাবাদেরই বাসিন্দা গুলাম ফরিদ শেখ নামে এক ব্যক্তি এই কাণ্ড করেছে। তাঁর মোবাইল থেকেই প্রথম এই ছবিগুলো একটি হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে পাঠানো হয়। শুক্রবার তাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গুলামের বিরুদ্ধে তথ্যপ্রযুক্তি আইনে মামলা রুজু করা হয়েছে। পুলিশ জানিয়েছে, ওই ধৃত ব্যক্তি নেহাতই মজার ছলে এই কাজ করেছেন নাকি এর পিছনে কোনও রাজনৈতিক উদ্দেশ্য রয়েছে তা এখনও নিশ্চিত হওয়া যায়নি। কমলেশ পটেলের অবশ্য দাবি, ‘বিজেপির বদনাম করার জন্যই সোশ্যাল মিডিয়ায় এই ধরনের ছবি শেয়ার করেছেন ফরিদ।’
ফরিদ শেখ নিজেও বিজেপির সদস্য হিসাবে অনলাইনে নাম নথিভূক্ত করেছেন।তারপর নিজের ফোন থেকেই পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান, আসারাম এবং রাম রহিম সিংহকেও সদস্য হিসাবে অনলাইন রেজিস্টার করিয়ে দেন। অনলাইন রেজিস্টার করালে একটা ভার্চুয়াল মেম্বার কার্ড তৈরি হয়। সেই মেম্বার কার্ডের ছবিই তিনি মোবাইল ফোনে ছড়িয়ে দেন।

Leave a Reply

%d bloggers like this: