দেশব্যাপী বাড়ছে ডিমের দাম, কমবে কবে?

মূলত প্রতিবছর অক্টোবর মাসে দ্বিতীয় শুক্রবারে বাংলাদেশে বেশ সাড়ম্বরে পালিত হয় বিশ্ব ডিম দিবস। সর্বশেষ বিশ্ব ডিম দিবসের শ্লোগান ছিলো ‘সুস্থ সবল জাতি চাই, সব বয়সে ডিম খাই’।
তবে বাজারে ডিমের দাম যেভাবে বাড়ছে তাতে ডিম খেয়ে কতটা সুস্থ সবল থাকা যাবে তা নিয়ে নিশ্চিত নন ব্যাংক কর্মকর্তা মুরাদ সালাউদ্দিন।
ঢাকার শাহজাদপুর এলাকার এই বাসিন্দা বিবিসি বাংলাকে বলেন, তার বাসার কাছের দোকান থেকে এক সপ্তাহ আগেও তিনি একশ টাকা ডজনে ডিম কিনেছেন।
“রোববার একই দোকানি ডিমের দাম চেয়েছে ১২৫ টাকা, প্রতি ডজনের জন্য।”
অথচ গত বছর বিশ্ব ডিম দিবসে মানুষকে ডিম খেতে উদ্বুদ্ধ করতে ঢাকার খামারবাড়িতে তিন টাকা পিস ধরে ডিম বিক্রির আয়োজন করেছিলো বাংলাদেশ পোলট্রি ইন্ডাস্ট্রিজ সেন্ট্রাল কাউন্সিল ও সরকারের মৎস ও প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর।
দিনে দুই কোটির বেশি ডিম উৎপাদন হয় বাংলাদেশে।
অধিদপ্তরের হিসেব অনুযায়ী, ২০১৭-১৮ অর্থ বছরে বাংলাদেশে ১ হাজার ৫৫০ কোটি পিস ডিম উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে উৎপাদন হয়েছে ১ হাজার ৫৫১ কোটি ৬৬ লাখ পিস।
বাংলাদেশের সরকারি বেসরকারি খামারগুলো থেকে প্রতিদিন প্রায় আড়াই কোটি ডিম উৎপাদন হয়।
অথচ সাম্প্রতিক সময়গুলোতে ডিমের দাম বাড়তে বাড়তে এখন প্রতি পিস ৮-১০ টাকা পর্যন্ত বিক্রি হচ্ছে।
ঢাকার নিকেতন এলাকায় বাস করেন দিলশাদ হোসেন, যার দৈনন্দিন খাদ্য তালিকায় ডিম অপরিহার্য।
বিবিসি বাংলাকে তিনি বলছেন যে, শনিবার এক ডজন ডিম কিনেছেন দোকান থেকে ১২০ টাকা দিয়ে, অথচ তার পাঁচ দিন আগেই একই দোকানে এক ডজন ডিমের দাম নিয়েছিলো ১০৫ টাকা।
“আসলে ডিমের দাম মনিটরিংয়ের কোন সিস্টেম আছে বলে মনে হয় না। যে যার মতো করে দাম রাখে। আমাদেরও তেমন কোন উপায় থাকে না।”
তিনি বলেন, “অথচ পুষ্টির বিবেচনায় এটি গুরুত্বপূর্ণ। সেখানে ডজনে ১৫ টাকা এক সপ্তাহে বাড়লে এটা সত্যিই সমস্যা।”

Leave a Reply

%d bloggers like this: