প্রতিবছরই আয় বাড়ছে বিএনপির!

মঙ্গলবার (৩০ জুলাই) আগারগাঁওস্থ নির্বাচন ভবনে নির্বাচন কমিশনে (ইসি) ২০১৮ সালে দলের আয়-ব্যয়ের হিসাব জমা দেয় বিএনপি। ক্ষমতার বাইরে থাকলেও, প্রতি বছরই আয় বেড়ে চলেছে বিএনপির। সেই ধারাবাহিকতায় ২০১৭ সালের তুলনায় ২০১৮ সালে আয় বেড়েছে দলটির। তবে সে তুলনায় খরচ কম হওয়ায় এ বছর বিএনপির উদ্বৃত্তের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৬ কোটি টাকারও বেশি।
২০১৮ সালে দলটির আয় ছিল ৯ কোটি ৮৬ লাখ ৫৬ হাজার ৩৮০ টাকা। বিপরীতে ব্যয় হয়েছে ৩ কোটি ৭৩ লাখ ২৯ হাজার ১৪৩ টাকা। আগের বছর (২০১৭ সালে) ৯ কোটি ৪৬ লাখ ২৪ হাজার ৯০২ টাকা আয়ের বিপরীতে দলটির ব্যয় ছিল ৪ কোটি ১৯ লাখ ৪১ হাজার ৯৫৪ টাকা। এবার দলের আয় হয়েছে ৯ কোটি ৮৬ লাখ ৫৬ হাজার ৩৮০ টাকা। আর ব্যয় হয়েছে ৩ কোটি ৭৩ লাখ ২৯ হাজার ১৪৩ টাকা। এখন পর্যন্ত দলীয় তহবিলে মোট উদ্বৃত্ত আছে ৬ কোটি ১৩ লাখ ২৭ হাজার ২৩৭ টাকা।
বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল সাংবাদিকদের বলেন, জাতীয় ও স্থানীয় সরকার নির্বাচনের মনোনয়ন ফরম বিক্রি, দলের সদস্যদের মাসিক চাঁদা ও এককালীন অনুদান ছিল দলটির আয়ের উৎস। আর খরচের খাতে ছিল দলীয় কার্যালয় পরিচালনার বিভিন্ন খরচ, ইফতার মাহফিল, পোস্টার ছাপানো, নির্বাচনি ব্যয়, নির্যাতিত নেতাদের সহায়তা ও বন্যায় ত্রাণ কাজ।
তিনি আরও বলেন, নির্বাচনে দলীয় মনোনয়নপত্র বিক্রি থেকে আমাদের সর্বাধিক আয় হয়েছে। এছাড়া ব্যক্তিগত অনুদান আছে, সদস্য এবং পদবিধারী অন্যদের চাঁদা আছে। সবমিলিয়ে গত বছরের চেয়ে এবার একটু বেশি হয়েছে।
২০১৭ সালে বিএনপির আয় হয় ৯ কোটি ৪৬ লাখ ২৪ হাজার ৯০২ টাকা। আর ব্যয় হয় ৪ কোটি ১৯ লাখ ৪১ হাজার ৯৫৪ টাকা। ওই বছর ৫ কোটি ২৬ লাখ ৫২ হাজার ৯৪৮ টাকা তাদের উদ্বৃত্ত ছিল।
২০১৬ সালে দলটির আয় হয়েছিল ৪ কোটি ১৩ লাখ ৬৮ হাজার ৭৩০ টাকা। আর ব্যয় হয়েছে ৩ কোটি ৯৯ লাখ ৬৩ হাজার ৭৫২ টাকা। উদ্বৃত্ত ছিল ১৪ লাখ ৪ হাজার ৭৭৮ টাকা।
২০১৫ সালের দাখিল করা আয়-ব্যয়ের প্রতিবেদন অনুযায়ী বিএনপি ১৪ লাখ ২৬ হাজার ২৮৪ টাকা ঘাটতিতে ছিল। ওই বছর দলটির আয় ছিল ১ কোটি ৭৩ লাখ ৩ হাজার ৩৬৫ টাকা। আর ব্যয় ১ কোটি ৮৭ লাখ ২৯ হাজার ৬৪৯ টাকা।
প্রসঙ্গত, গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ অনুযায়ী নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলগুলোকে ৩১ জুলাইয়ের মধ্যে পূর্ববর্তী পঞ্জিকা বছরের আয়-ব্যয়ের হিসাব (অডিট রিপোর্ট) নির্বাচন কমিশনে জমা দেওয়ার বাধ্যবাধকতা রয়েছে। এ হিসেবে আগামীকাল (বুধবারে) ২০১৮ সালের আয়-ব্যয়ের হিসাব জমা দেওয়ার ছিল শেষ দিন।

Leave a Reply

%d bloggers like this: