প্রসাদ খাইয়ে স্কুলে শিক্ষার্থীদের হরে কৃষ্ণ হরে রাম মন্ত্র পাঠ, যে ব্যাখ্যা দিল ইসকন

ইসকন নামে একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান (এনজিও) চট্টগ্রামের বিভিন্ন স্কুলে প্রসাদ খাইয়ে শিক্ষার্থীদের ‘হরে কৃষ্ণ হরে রাম’ মন্ত্র পাঠ করিয়ে থাকে। ফুড ফর লাইফের খাবার বিতরণের ব্যাখা দিয়ে দুঃখ প্রকাশ করেছে আন্তর্জাতিক কৃষ্ণভাবনামৃত সংঘ (ইসকন)। বিষয়টি জানিয়ে চট্টগ্রাম নগর পুলিশ কমিশনারের কাছে সংস্থাটির পক্ষ থেকে চিঠিও দেওয়া হয়েছে।
বৃহস্পতিবার রাতে ইসকন প্রবর্তক শ্রী কৃষ্ণ মন্দির সাধারণ সম্পাদক দারুব্রহ্ম জগন্নাত দাশ স্বাক্ষরিত বিশেষ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সম্প্রতি চট্টগ্রামের বিভিন্ন স্কুলে ইসকন ফুড ফর লাইফের খাবার বিতরণ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে নেতিবাচক প্রচার চালানো হচ্ছে।
মূলতঃ ইসকন রথযাত্রা উপলক্ষে মহানগরের ১০টি স্কুলে হিন্দু ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে খাবার বিতরণ করেছিল। রথযাত্রার শুভেচ্ছা হিসেবে প্রতি বছরই এই কার্যক্রম পরিচালিত হয়ে আসছে। কিন্তু এই কার্যক্রমকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে নেতিবাচক সংবাদ ছড়ানো হচ্ছে।
হিন্দু ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যেই স্বাস্থ্যসম্মত খাবার বিতরণ করা হয়েছে উল্লেখ করে বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, হিন্দু অধ্যুষিত এলাকার শুধুমাত্র একটি স্কুলে হিন্দু শিক্ষার্থীরা ‘হরে কৃষ্ণ’ মন্ত্র বলেছে। ইসকন শুধুমাত্র হিন্দুদের মধ্যেই ধর্মীয় প্রচারণামূলক কার্যক্রম পরিচালনা করে।
পাশাপাশি সব ধর্মমতের প্রতি ইসকন শ্রদ্ধাশীল। বাংলাদেশের প্রচলিত সাংবিধানিক রীতিনীতি, আইনকানুন এবং সব ধর্মের প্রতি ইসকন শ্রদ্ধাশীল।
ইসকনের আচরণে অনভিপ্রেতভাবে কেউ যদি কেউ যদি দুঃখ পেয়ে থাকেন বা কারো মনে আঘাত লেগে থাকে সে জন্য ইসকন দুঃখ প্রকাশ করছে। ভবিষ্যতে আরও সতর্কতার সঙ্গে ইসকন তাদের কার্যক্রম পরিচালনা করবে বলেও বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়।
প্রসঙ্গত, চট্টগ্রামে খাবার বিতরণের সময় ইসকন শিক্ষার্থীদের ‘হরে কৃষ্ণ’ মন্ত্র পাঠ করিয়েছে বলে একটি দৈনিকে প্রকাশিত প্রতিবেদন বৃহস্পতিবার হাইকোর্টের নজরে আনেন অ্যাডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকার। এ প্রসঙ্গে হাইকোর্ট বলেছেন, প্রসাদ খাইয়ে মন্ত্র পাঠ করানো অন্যায়।

Leave a Reply

%d bloggers like this: