প্রিয়া সাহার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলার দুটি আবেদন খারিজ

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের কাছে নালিশের ঘটনায় প্রিয়া সাহার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগে দুটি মামলার আবেদনই খারিজ করে দিয়েছে ঢাকার আদালত। মামলা দুটির আবেদন করেছিলেন ব্যারিস্টার সায়েদুল হক সুমন ও অ্যাডভোকেট ইব্রাহিম খলিল।
এছাড়া সিলেট, খুলনা ও নাটোরে প্রিয়া সাহার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের মামলার আবেদন করা হয়েছে। এদিকে, প্রিয়া সাহার বক্তব্যকে রাষ্ট্রদ্রোহ বলে মনে করছেন না আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। তবে ট্রাম্পের কাছে দেয়া তার বক্তব্য মিথ্যা বলে মন্তব্য করেন তিনি। রবিবার সকালে বিচার প্রশাসন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটের এক অনুষ্ঠান শেষে এ মন্তব্য করেন আইনমন্ত্রী।
এদিকে, প্রিয়া সাহার বিরুদ্ধে তড়িঘড়ি মামলা না করার নির্দেশ দিয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। রবিবার দুপুরে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্র এক অনুষ্ঠানে একথা জানান সড়ক পরিবহনমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। প্রিয়া সাহার দেশে ফেরায় সরকার কোনো প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করবে না বলেও জানান ওবায়দুল কাদের। তিনি আরো বলেন, প্রিয়া সাহার অভিযোগের বিষয়ে তাকে আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ দিতে হবে।
গত ১৬ জুলাই ধর্মীয় নিপীড়নের শিকার ২৭ ব্যক্তির সঙ্গে বৈঠক করেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। সেখানে ১৬ দেশের প্রতিনিধি অংশ নেন। বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক প্রিয়া সাহাও ট্রাম্পের সঙ্গে কথা বলার সুযোগ পান।
বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের নেতা প্রিয়া সাহা মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে বলেন, আমি বাংলাদেশ থেকে এসেছি। বাংলাদেশে ৩ কোটি ৭০ লাখ হিন্দু, বৌদ্ধ ও খ্রিস্টান নিখোঁজ রয়েছেন। দয়া করে আমাদের লোকজনকে সহায়তা করুন। আমরা আমাদের দেশে থাকতে চাই।
তিনি আরো বলেন, এখন সেখানে এক কোটি ৮০ লাখ সংখ্যালঘু রয়েছে। আমরা আমাদের বাড়িঘর খুইয়েছি। তারা আমাদের বাড়িঘর পুড়িয়ে দিয়েছে, তারা আমাদের ভূমি দখল করে নিয়েছে। কিন্তু এখন পর্যন্ত কোনো বিচার পাইনি।
ভিডিওটিতে দেখা গেছে, একপর্যায়ে ট্রাম্প নিজেই সহানুভূতিশীল হয়ে প্রিয়া সাহার সঙ্গে হাত মেলান।
বাংলাদেশ যেখানে ধর্মীয় সম্প্রতির মডেল হিসেবে সমাদৃত হচ্ছে সেখানে বিদেশ গিয়ে প্রিয়া সাহার এমন নালিশ দেশের ভাবমূর্তি চরমভাবে ক্ষুণ্ণ করছে বলেও মনে করেন সংশ্লিষ্টরা।

Leave a Reply

%d bloggers like this: