নিষেধাজ্ঞা শেষ বঙ্গোপসাগরের পথে জেলেরা

বঙ্গোপসাগরে মাছ ধরার উপর দেয়া নিষেধাজ্ঞা শেষ হচ্ছে আজ । ৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞা শেষে বঙ্গোপসাগরের গভীর সমুদ্রে জেলেরা মাছ শিকারে প্রস্তুতি নিয়ে যাত্রা করেছে। অনেকে বুধবারে সকালে যাওয়ার জন্যও প্রস্তুতি নিচ্ছে।
কক্সবাজার উপকূলের ফিশারিঘাট এলাকা। যেখানে বাঁকখালী নদীতে নোঙর করা আছে শত শত মাছ ধরার ট্রলার। সরকার ঘোষিত ৬৫ দিনের মাছ ধরার নিষেধাজ্ঞার কারণে এতদিন সাগরে মাছ শিকারে যাননি এসব ট্রলারের জেলেরা। ফলে চরম অনাহারে-অর্ধাহারে দিনযাপন করেছে জেলে পরিবারগুলো।
সরকারি নিষেধাজ্ঞার দিন শেষ হয়ে আসায় ফের সাগরে জাল ফেলার অপেক্ষায় খোশ মেজাজে কক্সবাজার উপকূলের জেলেরা। এখন তারা সাগরে যাওয়ার প্রস্তুতিতে ব্যস্ত। তাই ট্রলারে খাদ্য সামগ্রী, পানি, লাকড়ীসহ নানা সরঞ্জামাদি সরবরাহ করছে। দম ফেলার ফুসরত নেই তাদের। তবে নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে সাগরে যেতে পারায় খুশি হলেও সাগরে জলদস্যুতা নিয়ে আতংকে রয়েছেন জেলেরা।
এই মৌসুমে সাগরে জলদস্যুতা রোধ, বিদেশি ট্রলারের দৌরাত্ম বন্ধ ও ঠিক সময়ে দুর্যোগ বার্তা পাওয়ার দাবি জানালেন কক্সবাজার জেলা ফিশিং বোট মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো. দেলোয়ার হোসাইন।
অবশ্য জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন জানালেন, সাগরে জেলেদের নিরাপত্তার জন্য নৌ বাহিনী ও কোষ্টগার্ডের সক্ষমতা বাড়ানো হচ্ছে।
সরকার ঘোষিত সাগরে ৬৫ দিন মাছ ধরার ওপর নিষেধাজ্ঞার সময় নিবন্ধিত ৪৮ হাজার ৩৯৩ জন জেলেকে জনপ্রতি ৮৬ কেজি চাল দেয়া হয়েছে। তবে কক্সবাজারে এখনও দেড় লাখের অধিক জেলে ও মৎস্য শ্রমিক অনিবন্ধিত রয়েছে।

Leave a Reply

%d bloggers like this: