সিগারেট নিয়ে বিরোধ: ছাত্রলীগের এক নেতা পেটালেন আরেক নেতাকে

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক হলে রুমে সিগারেট খেতে বাধা দেওয়ায় রুমমেটকে আরেক রুমমেট কাঠ দিয়ে পিটিয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। শনিবার দুপুরে স্যার এ এফ রহমান হলের ৩০৫ নাম্বার রুমে এই ঘটনা ঘটে।
অভিযুক্ত সমাজবিজ্ঞান বিভাগ থেকে সদ্য মাস্টার্স শেষ করা আবু বকর সিদ্দিক হল ছাত্রলীগের সহসভাপতি। অন্যদিকে, অভিযোগকারী স্বাস্থ্য অর্থনীতি মাস্টার্সের শিক্ষার্থী হেদায়ুতুল্লাহও হল ছাত্রলীগের সহসভাপতি।
হল সূত্রে জানা যায়, ৩০৫ নম্বর রুমে এই দুজনের মধ্যে রুমের সিট নিয়ে পূর্বেই মনোমালিন্য ছিল। আজকে রুমে সিগারেট খেতে বাধা দেওয়ায় দুজনের মধ্যে তর্কাতর্কি হয়। একপর্যায়ে আবু বকর সিদ্দিক কাঠ দিয়ে হেদায়তুল্লাহকে আঘাত করে। এতে তার ডান হাতে মারাত্মক আঘাত পায়।
জানতে চাইলে আহত হেদায়তুল্লাহ দেশ রূপান্তরকে বলেন, সে অনেক আগ থেকেই রুমে সিগারেট খায়। ৮ জনের রুমে সিগারেট খেলে সবার সমস্যা হয়। কিন্তু সে কথা শুনতো না। আজকে সে তার আরেক বন্ধুসহ এসে সিগারেট খায়। আমি তার সঙ্গে কথা কম বলি। তাই আমাদের রুম মেটদের নিয়ে করা একটি ফেসবুক গ্রুপে লিখি- ‘সিগারেট খেলে ব্যালকনি আছে সেখানে গিয়ে যেন সে খায়’। এরপর সে এটা দেখার পরপরই রুমে থাকা কাঠ দিয়ে আমাকে জোরে আঘাত করে। এতে আমার হাতে মারাত্মক ব্যথা পাই। পরে মেডিকেলে গিয়ে এক্স-রে করাই। আমি হল প্রভোস্টকে লিখিত অভিযোগ দিয়েছি।
জানতে চাইলে অভিযুক্ত ছাত্রলীগ নেতা আবু বকর সিদ্দিক দেশ রূপান্তরকে বলেন, ও আমার বন্ধু, তেমন কিছু হয়নি। একটু ধাক্কা-ধাক্কি হয়েছে। আর কিছু হয়নি। আর এটা মিউচুয়াল হয়ে গিয়েছে।
জানতে চাইলে স্যার এ এফ রহমান হল প্রভোস্ট অধ্যাপক ড. কে এম সাইফুল ইসলাম খান দেশ রূপান্তরকে বলেন, এ রকম একটা ঘটনা ঘটেছে শুনেছি। কালকে এটা নিয়ে বসব। একজন শিক্ষার্থী আরেকজন শিক্ষার্থীর গায়ে হাত তুলবে এটা উচিত নয়।

Leave a Reply

%d bloggers like this: