হতাশ মাশরাফি আগলে রাখলেন তামিমকে

রোহিত শর্মার লোপ্পা ক্যাচটি তামিম ইকবাল ফেলে না দিলে হয়তো বাংলাদেশ-ভারত ম্যাচের গল্পটি ভিন্ন হতে পারতো। বিশ্বকাপে সেমি ফাইনাল থেকে ছিটকে যাওয়ার যে গ্লানি নিয়ে আজ মাশরাফিদের মাঠ ছাড়তে হলো, সেই গ্লানি দিক পাল্টে ভর করতো ভারত শিবিরেই। কিন্তু বিধি বাম, হলো না। মেলবোর্ন ট্রাজেডি, এশিয়া কাপ দুঃখ ও তিন বলে দুই রানের কান্নার পর ২৮ রানের শোকে শেষ হলো মাশরাফিদের ভারত মহারণের ম্যাচ।
এজবাস্টনে অনেক টাইগার সমর্থকই এই হারের পেছনে খলনায়কের কাঠগড়ায় তুলছেন তামিম ইকবালকে। তবে সেখানে ঢাল হয়ে দাঁড়ালেন মাশরাফি বিন মোর্ত্তজা। পরম মমতায় আগলে রাখলেন প্রিয় সতীর্থকে। হেভিওয়েট ম্যাচে এমন অমার্জনীয় ভুলের জন্য তার মুখ থেকে একটি শব্দই বের হলো, ‘হতাশ’, রোহিতের ক্যাচ মিসটি অবশ্যই হতাশার। তবে ক্রিকেটে এটা হয়। আর এই জন্য আমরা তামিমকে দোষী করতে পারি না।’
জয়ের জন্য বাংলাদেশের প্রয়োজন ছিল ৩১৪ রান। এমন আহামরি কোনো লক্ষ্য না যে টাইগাররা কখনোই স্পর্শ করতে পারেনি। এই বিশ্বকাপেই তার উদাহরণ আছে। গেল ১৭ জুন টন্টনে ৩২১ রান টপকে উইন্ডিজ বধের অনন্য ইতিহাস লিখেছেন মাশরাফিরা। পরের ম্যাচেই নটিংহ্যামে করেছেন নিজেদের ওয়ানডে ইতিহাসের সর্বোচ্চ রান (৩৩৩)। এই ম্যাচটিতে যদি কেউ ৮০-৯০ রানও করতেন তাহলে ভারত বধ অসম্ভব ছিল না বলে মত মাশরাফির।
টাইগার দলপতি জানালেন, ‘ম্যাচটি আমাদের জেতা উচিত ছিল। কিন্তু আমরা পারিনি। তবে মোস্তাফিজ ভালো বল করেছে। আমাদের ব্যাটসম্যানদের যে কেউ ৮০-৯০ রান করলেই হতো। ভাগ্য আমাদের সাথে ছিল না। ওভার অল টুর্নামেন্টটা ভালোই গিয়েছে। সাকিব, মুশফিকের পারফরম্যান্স ছিল অসাধারণ।’
তামিম ইকবালের অমন অবিমৃশ্যকারী ভুলের পর ব্যাটসম্যানদের দায়িত্ব-জ্ঞানহীন ব্যাটিংয়ের পরেও হাল ছাড়েননি সাকিব, সাইফউদ্দিন ও সাব্বির। লড়ে গেছেন ম্যাচের শেষ অবধি। সাইফের দাপুটে ব্যাটে এক সময় আশারও সঞ্চার হয়েছিল, নিশ্চয়ই হবে। নির্ভীক সৈনিকের মতো এক প্রান্ত থেকে ভারতের বোলারদের লাইন লেংথ বুঝেও গিয়েছিলেন। ৩৮ বল থেকে খেলেছেন ৫১ রানের ঝড়ো ইনিংস। তার ক্যারিয়ার সেরা ইনিংসে ছিল ৯টি চারের মার, ছিলেন অপরাজিত। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তার ব্যাটে শেষ রক্ষা হয়নি। লোয়ার মিডল অর্ডারে তার ও সাব্বিরে লড়াইটি ছিল অসাধারণ। যা স্কোর বোর্ডে ২৮৬ রান এনে দিয়েছে।
সঙ্গত কারণেই সতীর্থদের প্রচেষ্টার প্রশংসা করতে ভুল করলেন না নড়াইল এক্সপ্রেস। তবে জুটির আক্ষেপ তার থেকেই গেল, ‘ওরা চেষ্টা করেছে। তবে এটাও ঠিক ম্যাচটা আমাদের জেতা উচিত ছিল। একটি জুটি হলে বা কেউ ৮০-৯০ রানের ইনিংস খেলে দিলে ম্যাচের ফলাফল ভিন্ন হতে পারত।’

Leave a Reply

%d bloggers like this: