ইংরেজি বলতে না পারায় আত্মহত্যা?

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা থেকে নিখোঁজ ছিল ভারতের পশ্চিমবঙ্গের হুগলি জেলার সিঙ্গুরের বাসিন্দা ঋষিক কোলে। নিখোঁজ থাকার পর অবশেষে তার মরদেহ পাওয়া গেছে। উত্তরপাড়া ও হিন্দমোটরের মাঝে রেলের ট্র্যাক থেকে তার মৃতদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। জেভিয়ার্সে ফিজিক্সে অনার্সের প্রথম বর্ষের ছাত্র ছিলেন ঋষিক। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় থেকে তার কোন খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না।
রোববার হোস্টেলে ভর্তি হন ঋষিক। মঙ্গলবার পর্যন্ত ক্লাসও করেছেন তিনি। গতকাল সকাল ১০টা পর্যন্ত হোস্টেলে ছিলেন। এরপর থেকে তার আর কোনো খোঁজ পাওয়া যায়নি। বেনিয়াপুকুর থানায় অভিযোগ জানিয়েছে তার পরিবার। জয়েন্ট সিপি ক্রাইমের সঙ্গে দেখাও করেছেন তার বাবা।
ধারণা করা হচ্ছে মানসিক অবসাদে ভুগছিলেন ঋষিক? বাংলা থেকে প্রথম ইংরেজি মাধ্যমে পড়া শুরু করেছিল। কিন্তু ইংরেজি মাধ্যমে নিজেকে মানাতে পারছিলেন না। রুমমেটকে একথা জানিয়েছিল ঋষিক। জেভিয়ার্স কলেজে ২ দিন ক্লাস করেছেন। ৮টির মধ্যে ৪টি ক্লাসে উপস্থিত ছিলেন ঋষিক।
শুক্রবার খাবার খেয়ে হোস্টেল থেকে বেরিয়ে যান তিনি। বলে গিয়েছিলেন বালতি কিনবেন। এরপর সেখান থেকে কলেজে যাবেন বলে বন্ধুদের জানান। পিঠে ব্যাগ নিয়েই হোস্টেল থেকে বেরিয়ে যান ঋষিক। কিন্তু সিসিটিভি ফুটেজে ঋষিককে কলেজের দিকে যেতে দেখা যায়নি।
সিঙ্গুরের বাসিন্দা ঋষিক কৃষক পরিবারের সন্তান। পড়াশোনার জন্যই জীবনে প্রথম কলকাতায় আসেন তিনি। ইংরেজি মাধ্যমে মানাতে না পেরে অবসাদ থেকেই এমন ঘটনা ঘটিয়েছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

Leave a Reply

%d bloggers like this: