‘জয় শ্রীরাম’ না বলায় ভারতে তিন মুসলিম কিশোরকে গণপিটুনি

ভারতের গুজরাটের গোধরায় বৃহস্পতিবার রাতে মোটরবাইকে করে বাড়ি ফেরার সময় পথিমধ্যে কয়েকজন যুবক তাদের থামিয়ে ‘জয় শ্রীরাম’ বলতে বললে তাতে রাজি না হওয়ায় সমীরকে কপালে সাইকেলের চেন দিয়ে ও সালমানকে একটি ভোঁতা বস্তু দিয়ে মাথায় মারা হয়। এ সময় সঙ্গে থাকা অপর কিশোর সোহেলও আহত হয়। ছবি : সংগৃহীত
জয় শ্রীরাম‌ না বলায় আবারও ভারতের মাটিতে গণপিটুনির শিকার হতে হলো সংখ্যালঘু তিন কিশোরকে। এবার ঘটনাটি ঘটেছে গুজরাটের গোধরা এলাকায়। জানা গেছে, সেখানে জয় শ্রীরাম না বলতে চাওয়ায় তিন মুসলিম কিশোরকে বেধড়ক মারধর করা হয়। এ ঘটনায় অভিযোগের আঙুল উঠেছে ছয় অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তির বিরুদ্ধে। দুষ্কৃতকারীরা দুটি মোটরবাইকে চড়ে আসে বলে জানিয়েছে আক্রান্তদের পরিবার।
এ ঘটনায় আক্রান্ত কিশোররা হলো সমীর সিদ্দিকী, সালমান ঘিটেলি ও সোহেল ভগত। তারা মোটরবাইকে করে বাড়ি ফিরছিল। সে সময় মাঝপথে তাদের থামিয়ে এ ঘটনা ঘটায় দুষ্কৃতকারীরা। এমনকি এলাকায় আবার দেখা গেলে আক্রান্ত কিশোরদের প্রাণে মেরে ফেলার হুমকিও দেয় তারা। পরে অবশ্য পালিয়ে যায় আক্রমণকারীরা। আক্রমণকারী ওই ছয়জনের বিরুদ্ধেই একাধিক ধারায় মামলা করেছে পুলিশ।
অভিযোগকারী সোহেল ভগত জানায়, গত বৃহস্পতিবার রাতে তারা তিনজন মোটরসাইকেলে করে বাড়ি ফিরছিল। মাঝপথে দুটি মোটরবাইকে ছয়জন অজ্ঞাতপরিচয় দুষ্কৃতকারী সমীর, সালমান ও সোহেলকে থামায় এবং একপর্যায়ে তাদের ‘জয় শ্রীরাম’‌ বলতে বলে। আর তা না বলাতেই শুরু হয় অত্যাচার। সমীরকে কপালে সাইকেলের চেন দিয়ে আঘাত করা হয়। সালমানকে একটি ভোঁতা বস্তু দিয়ে মাথায় মারা হয়। এমনকি আক্রমণকারীরা প্রাণনাশের হুমকিও দেয় বলে অভিযোগ।
স্থানীয়রা আহত সমীর ও তার বন্ধুদের শহরের হাসপাতালে নেয়। তদন্তে নেমে পুলিশ কর্মকর্তা এইচসি রথভা জানিয়েছেন, ‘‌আক্রান্তরা কেউই এখন কথা বলার মতো অবস্থায় নেই। ফলে পুরো বিষয়টি তাদের মুখ থেকে জানা যায়নি। ছয়জন অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তির বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করা হয়েছে।

Leave a Reply

%d bloggers like this: