পরিচয় গোপন রেখে বাংলাদেশি পাসপোর্ট, রোহিঙ্গা তরুণ আটক

ফেনীতে নাম-পরিচয় বদলিয়ে বাংলাদেশি পাসপোর্ট তৈরির পর ভিসা রেজিস্ট্রেশন করতে এসে এক রোহিঙ্গা তরুণ আটক হয়েছে।
বুধবার (৭ আগস্ট) দুপুরে ফেনীর মহিপালে কর্মসংস্থান ও জনশক্তি অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা রোহিঙ্গা তরুণটিকে আটক করে পুলিশে দেয়। ফেনী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আলমগীর হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
রোহিঙ্গা তরুণের প্রকৃত নাম আবদুল্লাহ। সে কক্সবাজার ১৬ নাম্বার শফি উল্লাহ কাটা রোহিঙ্গা ক্যাম্পের বাসিন্দা।
জনশক্তি রপ্তানি অধিদপ্তর ফেনীর সহকারী পরিচালক নিজাম উদ্দিন সারাবাংলাকে জানান, দুপুরে বাংলাদেশি পাসপোর্টসহ এক রোহিঙ্গা তরুণকে ভিসা প্রসেসিং এর রেজিস্ট্রেশন করাতে নোয়াখালীর দৈনিক বাংলাদেশ পত্রিকার ‘সাংবাদিক’ পরিচয় দিয়ে জুয়েল রানা, আশিক ও নাসির নামের তিনজন কর্মসংস্থান ও জনশক্তি অফিসে নিয়ে আসে। এ সময় ‘সাংবাদিকরা’ তাড়া আছে বলে দ্রুত কাজটি করে দিতে কর্মকর্তাদের তাগাদা দেন। পরে কর্মকর্তারা ‘আব্দুর রহমানের’ নাম-পরিচয় জিজ্ঞেস করলে সে বুঝতে না পারায় সন্দেহ হয় কর্মকর্তাদের। এ সময় ঝামেলার বিষয়টি বুঝতে পেরে সাংবাদিকরা দ্রুত সটকে পড়ে। পরে তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশে সোপার্দ করা হয়।’
ফেনী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আলমগীর হোসেন সারাবাংলাকে জানান, ছেলেটির নাম আবদুল্লাহ। আটক রোহিঙ্গা তরুণ ফেনীর পরশুরাম উপজেলার নোয়াপুর গ্রামের ঠিকানা ব্যবহার করে ফেনী পাসপোর্ট অফিস থেকে দালালের মাধ্যমে বাংলদেশি পাসপোর্ট তৈরি করে। ২০১৮ সালের ৭ ফেব্রুয়ারি ফেনী আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের সহকারী পরিচালক মো. আবুল হোসেন স্বাক্ষরিত ওই পাসপোর্টে (বিআর ০৬৮৭৪৪৩) রোহিঙ্গা তরুণের নাম দেওয়া হয়েছে আব্দুর রহমান, পিতার নাম দেওয়া হয়েছে মো. জাহান ও মাতার নাম দেওয়া হয়েছে নুর জাহান।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে রোহিঙ্গা তরুণ আবদুল্লাহ সারাবাংলাকে জানান, গত বছর দালালের মাধ্যমে মোটা অংকের টাকা দিয়ে পাসপোর্টটি বানানো হয়েছে। পরে ওই দালালদের মাধ্যমে সৌদি আরবের ভিসা কিনে ফিঙ্গারপ্রিন্ট দিতে আসে সে।

Leave a Reply

%d bloggers like this: