বিচারের দাবি নিয়ে থানায় ২য় শ্রেণির ছাত্র!

পুলিশের কাছে অভিযোগ করতে থানায় হাজির হয়েছে সাত বছরের এক শিশু। ছোট শিশুর আইনের প্রতি শ্রদ্ধা দেখে বিষয়টি নিয়ে ভাবনায় ফেলে পুলিশকে।
জানা যায়, বাড়ির পাশে খেলার সময় কথা কাটাকাটির পর ধাক্কাধাক্কি হয় কাদেরীর সাথে। একপর্যায়ে বিচারের দাবি জানায় অভিযুক্ত শিশুদের অভিভাবকের কাছে কাদেরী। কিন্তু সেখানে বিচার তো দূরের কথা উল্টো বকাঝকা করা হয় তাকে। এই কারণেই ন্যায় বিচার পেতে থানায় হাজির হয় সে।
প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ জানান, বৃহস্পতিবার দুপুরে নাচোল উপজেলার স্টেশন পাড়া থেকে পরিবারের কাউকে না জানিয়ে রিক্সায় করে থানায় আসে কাদেরী। তার অভিযোগ গালমন্দ এবং অপমানজনক কথা বলা হয়েছে তাকে।
নাচোল থানার পরিদর্শক (তদন্ত ) মাহবুবুর রহমান জানান, পুলিশ অফিসারের সাথে কথা বলতে চায় এক শিশু। পরে কর্তব্যরত এক পুলিশ সদস্য আমার কাছে নিয়ে আসে শিশুটিকে। এরপর সে কাঁদতে কাঁদতে আমাকে সব ঘটনা খুলে বলে এবং আমার কাছে বিচারের দাবি জানায়। এরপর আমি তার সাথে কাউন্সিলিং করি এবং একজন উপ-পরিদর্শকের সাথে শিশুটিকে তার বাড়িতে পৌছে দেই, সেই সাথে সমস্যার সমাধানের ব্যবস্থা করি। এতো অল্প বয়সে কাদেরী একাই থানায় এসে অভিযোগ করেছে তা আমাদের অবাক করেছে। তাকে বাড়ি যাওয়ার জন্য রিক্সা ভাড়া দিতে চাইলেও সে তা গ্রহণ করেনি।
জানা যায়, নাচোল ঘিওন গ্রামের আব্দুল কাদেরর ছেলে আহম্মেদ বিন কাদেরী (০৭)। স্থানীয় এশিয়ান স্কুল এ্যান্ড কলেজের দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্র সে। পড়াশোনার জন্য সে বসবাস করে নানা বাড়িতে। নানা বাড়ি উপজেলা শহরের স্টেশন পাড়ায়। আর সেখানেই প্রতিবেশী শিশুদের সাথে খেলার সময় ঘটে এমন অপ্রীতিকর ঘটনা।

Leave a Reply

%d bloggers like this: