খরুলিয়ার হেলালকে অপহরণঃ সন্ত্রাসীদের মুক্তিপণ দাবি

Stay Home. Stay Safe. Save Lives.
#COVID19


নিজস্ব প্রতিনিধি:: কক্সবাজার লিংকরোডে মোঃ আল হেলাল (২১) নামের এক শাক ব্যবসায়ীকে অপহরণ করেছে সন্ত্রাসীরা। গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে কক্সবাজার সদর উপজেলার ঝিলংজা ইউনিয়নের লিংকরোড স্টেশনে এই ঘটনা ঘটেছে।
অপহৃত আল হেলাল খরুলিয়া সুতারচর গ্রামের মোঃ আলী হোছনের ছেলে। অপহরণকারী অনেকের বাড়ি ও খরুলিয়া বলে আল হেলাল জানিয়েছে। হেলাল প্রতিদিনের ন্যায় কক্সবাজার থেকে শাক বিক্রি করে ফেরার পথে টমটম যোগে লিংকরোড পর্যন্ত আসলে তার পার্শ্ববর্তী গ্রাম খরুলিয়া মাস্টারপাড়ার নুরুল হকের ছেলে আবু বক্কর(২২) তাকে টার্মিনাল বাস স্টেশনে একজন থেকে কিছু পাওনা টাকা নেওয়ার কথা বলে ফুসলিয়ে উল্টো টার্মিনালে নিয়ে যায়। নির্ধারিত জায়গায় পৌঁছানো মাত্রই পিছন থেকে তাঁর চোখে কাপড়ের পট্টি বেঁধে দেয় একজন। বাকিরা তাঁর হাত ধরে থাকে পিছমোড়া করে গায়ে বন্দুক ঠেকিয়ে সিএনজি গাড়িতে তুলে
তার হাতে থাকা মোবাইল ফোন ও মানি ব্যাগে থাকা ১২ হাজার টাকা ছিনিয়ে নিয়ে কলাতলী উত্তরণ কাটা পাহাড়ের ভিতর নিয়ে গাছের সাথে বেধে বেধড়ক মারধর করে ও তাঁর চোখের বাধন খুলে দেয় সন্ত্রাসীরা। সেখানে তিনি ৮ জনের অপহরণ চক্র দেখতে পান। তার একই এলাকার মুছা আলীর ছেলে মোঃ সাহেদ (২০) ও নুরুল হকের ছেলে মোঃ হারুন (২০) ও খালেক নামে একজনের নাম শুনতে পান। তারাও তাকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে ও আঘাত করতে থাকে।এভাবে অপহৃত হেলালের কাছ থেকে ৫ লক্ষ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে ওই সন্ত্রাসীরা। সে টাকা দিতে রাজি না হলে তাকে রড, হকিস্টিক দিয়ে এলোপাতাড়ি মারধর শুরু করে ।
এক পর্যায় রাত ৮টার নাগাদ অপহরণ চক্র তাকে ৩০ মিনিট সময় বেধে দেয়। এই নির্ধারিত সময়ে যদি ৫ লক্ষ টাকা না দেয় তারা তাকে হত্যা করে গাছের সাথে ঝুলিয়ে রাখবে বলে সাফ জানিয়ে দেয়। একপর্যায়ে অপহৃত হেলাল কান্নাকাটি করতে করতে বাধ্য হয়ে তার বাবা আলী হোছনকে ফোন করে টাকা নিয়ে আসতে বলে।

পরবর্তীতে তাকে গাছে বাধা অবস্থায় তার কিছু দুরে অপহরণকারীরা পাহাড়ের চূড়ায় তাদের টংকিতে গিয়ে মাদক সেবন করতে থাকে। এমন সময় অপহৃত হেলাল তার বাধন খোলার চেষ্টা করতে থাকে। একপর্যায়ে সে তার বাধন খুলতে সক্ষম হয় এবং পাহাড়ের চূড়া থেকে নিচে অন্ধকারে লাফ দিয়ে সোজা দৌড়াতে থাকে। ভাগ্যক্রমে সে পালিয়ে আসতে সক্ষম হয় ও মেইনরোডে এসে এক দোকানি থেকে মোবাইল নিয়ে তার বাবা আলী হোছন কে ফোন দেয়।

পরবর্তীতে তার বাবা সহ পরিবারের সদস্যরা তাকে উদ্ধার করে কক্সবাজার সদর হসপিটালে নিয়ে আসেন।
তার পিতা জানান, চিহ্নিত সন্ত্রাসী ও অপহরণকারীদের বিরুদ্ধে শিঘ্রী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করবো। ঘটনা জানাজানি হওয়ার পর আমরা নিজ বাড়িতে নিরাপত্তাহীনতায় ভোগছি। তাই প্রশাসনের সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে দোষীদের আইনের আওতায় আনতে সু-দৃষ্টি কামনা করছি।

খরুলিয়া এলাকায় খবর নিয়ে জানা যায়, অপহরণকারী দলের সদস্য মোঃ আবুবক্কর(২২), মোঃ সাহেদ (২০), মোঃ হারুন (২০) খরুলিয়া এলাকায় চিহ্নিত সন্ত্রাসী। এছাড়াও চাঁদাবাজি, মাদক সহ নানা অবৈধ কার্যকলাপের সাথে জড়িত। তাদের রয়েছে সবারই একাধিক মামলা।

Leave a Reply

Stay Home. Stay Safe. Save Lives.
#COVID19

%d bloggers like this: