বাংলাদেশে বিনিয়োগে কে এগিয়ে? চীন না ভারত?

নতুন করে বাংলাদেশের সঙ্গে ভারত ও চীনের কূটনৈতিক সম্পর্ক আলোচনায় এসেছে। ভূ-রাজনীতিতে দুই দেশই বাংলাদেশকে নিয়ে এক পর্যায়ের টানাটানিই শুরু হয়েছে। কৌশলগত রাজনীতিতে ভারত এগিয়ে থাকলেও চীনের লক্ষ বিনিয়োগের মাধ্যমে।
বাংলাদেশে বিদেশি বিনিয়োগে কে এগিয়ে- এমন তথ্য পাওয়া গেছে বাংলাদেশ ব্যাংকের একটি প্রতিবেদনে।
এতে দেখা গেছে, বাংলাদেশে বিদেশি বিনিয়োগ কমেছে। বিদেশি বিনিয়োগ আকৃষ্ট করতে কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে নানা উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। বিদ্যমান নীতিমালাও শিথিল করা হয়েছে। গত বছরে বিদেশে বিনিয়োগ এসেছে ২৮৭ কোটি ৩৯ লাখ ডলার। আগের বছরের চেয়ে যা ২০ দশমিক ৬৪ শতাংশ কম।

বিদেশি বিনিয়োগকারী দেশের মধ্যে শীর্ষ ১০টি দেশের মধ্যে প্রথমে রয়েছে চীন। দেশটি গত এক বছরে বাংলাদেশে বিনিয়োগ করেছে ৬২ কোটি ৬০ লাখ ডলার, যা স্থানীয় মুদ্রায় ৫ হাজার ৩২১ কোটি টাকা (প্রতি ডলার ৮৫ টাকা হিসেবে)। চীনের এ বিনিয়োগ মোট বিদেশি বিনিয়োগের প্রায় ২২ শতাংশ। চীনের সবচেয়ে বেশি বিনিয়োগ এসেছে বিদ্যুৎ ও বস্ত্র খাতে।
পরের স্থানেও নেই ভারত। শীর্ষ দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে যুক্তরাজ্য, যা বাংলাদেশের মোট বিনিয়োগের প্রায় সাড়ে ১৪ শতাংশ। চীন ও যুক্তরাজ্যের পরেই রয়েছে সিঙ্গাপুর। দেশটি গত বছর বাংলাদেশে বিনিয়োগ করেছে মোট বিদেশি বিনিয়োগের প্রায় সাড়ে ৯ শতাংশ। ১৯ কোটি ৩৫ লাখ ডলার বা ৬ দশমিক ৮৭ শতাংশ বিদেশি বিনিয়োগ করে চতুর্থ অবস্থানে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। পঞ্চম অবস্থানে রয়েছে নরওয়ে। দেশটি গত বছর বাংলাদেশে বিনিয়োগ করেছে ১৯ কোটি ৪২ লাখ ডলার, যা মোট বিদেশি বিনিয়োগের ৬ দশমিক ৭৫ শতাংশ।
বাংলাদেশে বিদেশি বিনিয়োগের দিক থেকে ষষ্ঠ অবস্থানে রয়েছে নরওয়ে। দেশটি গতবছর বাংলাদেশে বিনিয়োগ করেছে ১৯ দশমিক ১৭ লাখ ডলার, যা মোট বিনিয়োগের ৬ দশমিক ৬৭ শতাংশ। বাংলাদেশে বিদেশি বিনিয়োগের দিক থেকে সপ্তম অবস্থানে রয়েছে সংযুক্ত আরব আমিরাত। দেশটি গত বছর বাংলাদেশে বিনিয়োগ করেছে ১৫ কোটি ৩২ লাখ ডলার, যা মোট বিনিয়োগের ৫ দশমিক ৩৩ শতাংশ।
অষ্টম অবস্থানে রয়েছে হংকং। দেশটি গত বছর বাংলাদেশে বিনিয়োগ করেছে ১৪ কোটি ৫৩ লাখ ডলার, যা মোট বিদেশি বিনিয়োগের ৫ দশমিক শূন্য ৬ শতাংশ। এই তালিকায় নবম স্থানে রয়েছে প্রতিবেশী দেশ ভারত, যা মোট বিনিয়োগের ৪ শতাংশের মতো। আর দশম অবস্থানে রয়েছে জাপান ৭ কোটি ২৩ লাখ ডলার, যা মোট বিদেশি বিনিয়োগের ২ দশমিক ৫২ শতাংশ।
বিনিয়োগের খাতের দিক দিয়ে প্রতিবেদনে দেখা গেছে, গত বছরে বিদেশি বিনিয়োগের মধ্যে সবচেয়ে বেশি বিনিয়োগ হয়েছে বিদ্যুৎ খাতের ৩২ দশমিক ৭৬ শতাংশ। এ খাতে উল্লিখিত সময়ে বিনিয়োগ হয়েছে ৯৪ কোটি ১৬ লাখ ডলার, বিদ্যুৎ খাতের মধ্যে গত বছর চীনেরই বিনিয়োগ হয়েছে ৩৬ কোটি ২১ লাখ ডলার। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ বিদেশি বিনিয়োগ হয়েছে ব্যাংকিং খাতে ১১ দশমিক ৬৭ শতাংশ, গত বছর ব্যাংকিং খাতে বিদেশি বিনিয়োগ হয়েছে ৩৩ কোটি ৫৩ লাখ ডলার।
তৃতীয় সর্বোচ্চ বিদেশি বিনিয়োগ হয়েছে খাদ্যে ৮ দশমিক ৬৫ শতাংশ, গত বছর খাদ্যে বিদেশি বিনিয়োগ এসেছে ২৪ কোটি ৮৫ লাখ ডলার। চতুর্থ সর্বোচ্চ বিদেশি বিনিয়োগ হয়েছে টেক্সটাইল খাতে সাড়ে ৮ শতাংশ, গত বছর এ খাতে বিদেশি বিনিয়োগ এসেছে ২৪ কোটি ৪২ লাখ ডলার। টেলিকমিউনিকেশন খাতে আসা বিদেশি বিনিয়োগ রয়েছে পঞ্চম স্থানে, গত বছর এ খাতে বিদেশি বিনিয়োগ এসেছে ৭ দশমিক ২৫ শতাংশ।

Leave a Reply

%d bloggers like this: