ভালোবাসায় পরাস্ত করোনা, হাসপাতালেই বিয়ে

করোনার কারণে ইচ্ছা থাকলেও অনেক কিছু থেকে বিরত থাকতে হয়েছে। প্রিয়জনকেও দূরে রাখতে হয়েছে। তবে এই সঙ্কটজনক সময়ে প্রিয়জনের পাশে থাকার গুরুত্ব উপলব্ধি করেছেন কেউ কেউ। তেমনই একজন গ্রেস। আনন্দ বাজারের প্রতিবেদনে এই তথ্য পাওয়া গেছে।
তার ভালোবাসার মানুষটি করোনায় আক্রান্ত, পাশে থেকে সবসময় সাহস জুগিয়েছেন গ্রেস। শেষ পর্যন্ত তারা হাসপাতালেই বিয়ে করে নিলেন। তাদের এই ভালোবাসার কাহিনী এখন সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল।
যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাসের মহামারির মধ্যে বিয়ে করার কথা ভেবেছিলেন কার্লোস মুনিজ এবং গ্রেস। কিন্তু বিয়ের কিছু দিন আগেই কার্লোসের করোনা ধরা পড়ে। ভর্তি হন শহরের মথোডিস্ট নামের এক হাসপাতালে। কিন্তু সেখানে তার অবস্থার কোনও উন্নতিই হচ্ছিল না, এক সময় তিনি আইসিইউতে চলে যান। এই পরিস্থিতিতেও গ্রেস সব সময় কার্লোসের পাশে ছিলেন, তাঁকে সাহস জুগিয়েছেন।
হাসপাতালে প্রায় মাস খানেক থাকার পর কার্লোসের কোভিড টেস্টে নেগেটিভ আসে। তখনই তারা সিদ্ধান্ত নেন বিয়েটা সেরে নেবেন। কিন্তু হাসপাতাল থেকে তখনও ছাড়া পাওয়ার কোনও সম্ভাবনাই ছিল না কার্লোসের। কারণ তার শারীরিক অবস্থার ততখানি উন্নতি হয়নি। এমন পরিস্থিতিতে হাসপাতালের কর্মীরাই তাদের সাহায্যে এগিয়ে আসেন। সব দায়িত্ব তারাই নিজেদের কাঁধে তুলে নেন।
স্বাভাবিক পরিস্থিতিতে যেভাবে বিয়ে হওয়ার ছিল, সেভাবে না হলেও যতটা সম্ভব আয়োজন করেন হাসপাতাল কর্মীরা। ভাইরাল হওয়া ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, বিয়ের পোশাকে করিডর দিয়ে এগিয়ে আসেছেন গ্রেস। আর বেডে শুয়ে থাকা কার্লোসের সঙ্গে হাসপাতালের মধ্যেই বিয়ে সারছেন। এমনকি বিয়ের কেকেরও আয়োজন করা হয়।
এই বিয়ের ভিডিও একটি সংবাদমাধ্যমের ফেসবুক পেজে আপলোড হয়েছে। শনিবার পোস্ট হওয়া ভিডিওটি এখনও পর্যন্ত প্রায় ছ’ হাজার বার দেখা হয়েছে। সেই সঙ্গে গ্রেস ও কার্লোসের প্রেম এবং হাসপাতাল কর্মীদের এই উদ্যোগের প্রশংসা করেছেন অনেকেই।

Leave a Reply

%d bloggers like this: