ভূমিকম্পের তীব্রতায় গভীর সমুদ্রের দৈত্যাকার মাছ চলে এল ডাঙায় !

গত মঙ্গলবার ভয়ানক ভূমিকম্পে কেঁপে ওঠে ফিলিপিন্সের মাটি। রিখটার স্কেলে তীব্রতা ছিল ৬.৬, যার ফলে বেশ ক্ষতি হয় ফিলিপিন্সের। তবে এই ভূমিকম্পের পরেই কপাল খুলে স্যান্টা মোনিকা গ্রামের এক জেলের।
ভূমিকম্পের ঘণ্টা খানেক পরেই এক বিশাল আয়তনের ওপাস মাছ দেখতে পান স্যান্টা মোনিকার এক জেলে। তিনি মাছ ধরতে গিয়েছিলেন সমুদ্রে। ভূমিকম্পের সময় তিনি সমুদ্রতেই ছিলেন। সমুদ্র সৈকতের কাছে এই বিশালাকার মাছটিকে তিনি দেখতে পান। একেবারে ডাঙার কাছে চলে আসে এই মাছ।
এই বিশাল মাছটি চড়ে চলে আসায় আর মাঝ সমুদ্রে ফিরতে পারে না। চড়েই আটকে থাকে সে। স্যান্টা মোনিকার জেলে আরম্যান্ডো আমোস প্রথম এই মাছটিকে উদ্ধার করেন। এর পরেই খবর হয় এত বড় মাছ ভেসে আসার কথা।
বিশেষজ্ঞদের মতে, এই মাছ সাধারণত মাঝ সমুদ্রে থাকে। গভীর জলের মাছ। এদের শরীরে গরম রক্ত বয়ায় এই মাছটিকে উষ্ণ রক্তের মাছও বলা হয়। এই মাছ সমুদ্রের বাকি মাছেদের থেকে অনেক দ্রুত গতিতে সাঁতার কাটতে পারে। সাধারণত টুনা ফিশ তৈরি হয় এই মাছ দিয়ে। প্রচুর দাম এই মাছের।
গভীর জলে থাকার জন্য এদের কখনই ধরা যায় না। মনে করা হচ্ছে ভূমিকম্পের জন্যই সমুদ্রের ঢেউতে ডাঙার কাছাকাছি এসে মৃত্যু হয় এই মাছের। তবে এভাবে গভীর জলের মাছ ডাঙায় চলে আসায় চিন্তিত বিশেষজ্ঞরা।

Leave a Reply

%d bloggers like this: