সিনহা হত্যা:প্রদীপসহ প্রধান ৩ আসামীকে নিয়ে মেরিন ড্রাইভে গেল র‍্যাব

জসিম উদ্দীন::

গত ৩১জুলাই পুলিশের গুলিতে নিহত মেজর (অব.) সিনহা হত্যা মামলায় রিমান্ডে থাকা মূল ৩ আসামি বরখাস্ত ওসি প্রদীপ কুমার দাশ, ইন্সপেক্টর লিয়াকত আলী ও এসআই নন্দদুলাল রক্ষিতকে মেরিন ড্রাইভে, ঘটনাস্থল বাহারছড়ার শামলাপুর চেকপোস্টে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

শুক্রবার (২১ আগস্ট) দুপুর ১টার দিকে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা (আইও) র‍্যাব-১৫ এর সিনিয়র সহকারি পুলিশ সুপার মোহাম্মদ খায়রুল ইসলাম তাদের নিয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছেছেন।

সিনহা হত্যার গুলি করার ঘটনার বিস্তারিত ব্যাখ্যা শুনতেই তাদের ঘটনাস্থলে নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে র‌্যাব।

এদিকে র‌্যাবের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (অপারেশন) তোফায়েল মোস্তফা সারওয়ার বলেছেন, মেজর (অব.) সিনহা মোহাম্মদ রাশেদকে গুলি করার ঘটনা দুই মিনিটের মধ্যেই ঘটে। সেই দুই মিনিটের মধ্যে কি এমন ঘটেছিল কেন তাকে গুলি করা হলো- সে প্রশ্নের উত্তর খোঁজা হচ্ছে।

শুক্রবার ঘটনাস্থল টেকনাফ শামলাপুর চেকপোষ্ট এলাকা পরিদর্শনে গিয়ে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন তিনি।

এর আগে গত ১৮ আগস্ট সকালে কক্সবাজার জেলা কারাগার থেকে মেজর (অব.) সিনহার বড় বোন শারমিন শাহরিয়া ফেরদৌস এর করা মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা র‍্যাব-১৫ এর সহকারি পরিচালক সিনিয়র পুলিশ সুপার মোহাম্মদ খায়রুল ইসলাম তার হেফাজতে নিয়ে যায়।

প্রসঙ্গত গত ৩১শে জুলাই রাতে টেকনাফের পাহাড়ে ভিডিওচিত্র ধারণ করে মেরিন ড্রাইভ দিয়ে কক্সবাজারের হিমছড়ি এলাকার নীলিমা রিসোর্টে ফেরার পথে শামলাপুর তল্লাশিচৌকিতে পুলিশের গুলিতে নিহত হন মেজর (অব.) সিনহা রাশেদ খান।

এ ঘটনায় গত ৫ আগস্ট নিহত সিনহার বোন শারমিন শাহরিয়া ফেরদৌস বাদী হয়ে কক্সবাজার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ওসি প্রদীপ কুমার দাশ, পরিদর্শক লিয়াকত আলীসহ ৯ জনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করেন।

পরে গত ৬ আগস্ট মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তার আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বিজ্ঞ আদালত শুনানি শেষে তাদের প্রত্যেককে ৭দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছিলেন।

Leave a Reply

%d bloggers like this: