পিএমখালীতে সমাজচ্যুত করল এক ইয়াবা ব্যাবসায়ীকে

পিএমখালীতে অবৈধ ব্যাবসায়ীদের সমাজচ্যুত করতে সৌচ্ছার হয়েছে এলাকাবাসী।

প্রেস বিজ্ঞপ্তি:: কক্সবাজার সদরের পিএমখালী ইউনিয়নের উত্তর ডিকপাড়া গ্রামের সমাজ কমিঠির লিখিত এক বিবৃতিতে এই ঘোষণা দেওয়া হয়। সদ্য জেল ফেরত নবিউল হক প্রকাশ ইয়াবা শেখ নবী কে ইয়াবা সংশ্লিষ্টতা ও তার পরিবারের অসামাজিক আচরনের কারনে সামাজিকভাবে বয়কট করা হয়েছে বলে বিবৃতিতে উল্লেখ রয়েছে। শেখ নবী একই এলাকার মৃত সুলতানের পুত্র। । শেখ নবী গত ২৬ই জুলাই ইয়াবা সহ কক্সবাজার সদর মডেল থানার এসআই বেলালের হাতে আটক হয়েছিল। এরপর থেকে সমাজ কমিঠির দায়িত্বে থাকা সকলে তাদের বারবার বারন করা স্বত্তেও তারা ইয়াবা ব্যবসা নির্দ্বিধায় চালিয়ে যাচ্ছিল। সমাজ কমিঠির উক্ত লিখিত বিবৃতিতে তার বিরুদ্ধে আরো অভিযোগ, নিজ বাড়িতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তালিকাভুক্ত ইয়াবা ডন টেকনাফের খোরশেদুল আলম কে আশ্রয় প্রশ্রয় দেওয়া ও এলাকার উঠতি যুবকদের পথভ্রষ্ট করার পিছনে তার ছেলে মেহেদীর মূল ভূমিকা। তাই সমাজের সকল শ্রেণীর মানুষের মতামতের ভিত্তিতে তাদের সমাজচ্যুত করার এই সিদ্ধান্ত গৃহিত হয়েছে। তার পর্বতী কোন অসামাজিক কর্মকান্ডের দ্বায়ভার সমাজ কমিঠি নিবেনা।

উক্ত সমাজের গণ্যমান্য ব্যাক্তি ও কমিটির সভাপতি, সাধারন সম্পাদক আরো জানান, নবিউল হক প্রকাশ ইয়াবা শেখ দীর্ঘদিন ধরে ইয়াবা ব্যবসার সাথে জড়িত ছিল। আমরা প্রাথমিকভাবে আচ করতে পারলেও আমাদের কাছে কোন তথ্যবহুল প্রমান ছিলনা। তাই আমরা তার বিরুদ্ধে প্রথমে ব্যবস্থা নিতে সক্ষম হয়নি। উল্লেখ থাকে যে,একই অভিযোগে দক্ষিন ডিকপাড়া সমাজ হতে ও তাকে সমাজচ্যুত করা হয়েছিল। কিন্তু গত ২৬ জুলাই ইয়াবা সহ হাতেনাথে পুলিশের হাতে আটকের পর আমরা সিদ্ধান্ত গ্রহণ করি তার পরিবারকে সমাজচ্যুত করার। তার ছেলে মেহেদী এলাকায় উঠতি যুবকদের নিয়ে তৈরী করেছে কিশোর গ্যাং। ফলে স্কুল কলেজ ফাকিঁ দিয়ে যুব সমাজ আড্ডা জমাচ্ছে তাদের বাড়িতে। সদ্য জেল ফেরত নবী তার পূর্বের পেশা ছাড়তে পারেনি বরং তার ছেলে ও স্ত্রীর চলাফেরা আরো বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। জেল হতে বেরিয়ে সে বিভিন্ন ব্যবসার আড়ালে আবারো অবৈধ ব্যবসা শুরু করে। তার অপকর্মের প্রতিবাদ করায় তার ছেলে কিশোর গ্যাং লিডার মেহেদী বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফ্যাক আইডির ব্যবহার করে সমাজের সম্মানীত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে কুরুচিপূর্ণ মিথ্যা, বানোয়াট ও ভিত্তিহীন অভিযোগ এনে কুৎসা রটাচ্ছে। আমরা তার এমন পশুত্ব আচরন ও মিথ্যা সংবাদের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। বর্তমান সরকারের মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স ঘোষণা কে সফল করতে আমাদের এটি ক্ষুদ্র চেষ্টা। সমাজে আরো যারা চিহ্নিত ইয়াবা ব্যাবসায়ী রয়েছে তাদের ও ক্রমান্বয়ে সমাজচ্যুত করা হবে। আমরা মনেকরি,এভাবে ছোট ছোট সিদ্ধান্ত ভূমিকা রাখবে সমাজ পরিবর্তনে। এবং মাদক হতে বাচাঁতে পারে কোমলমতি শিক্ষার্থী ও উঠতি যুব সমাজকে। তাই ইয়াবা ব্যাবসায়ীদের সামাজিকভাবে বয়কট করার ঝোঁক আমরা উত্তর ডিকপাড়া সমাজ কমিঠির মাধ্যমে কক্সবাজার জেলায় শুরু করতে চাই। আশা করি প্রশাসন সহ সুশীল সমাজ আমাদের এই ইয়াবা বিরোধী ক্ষুদ্র প্রয়াসকে স্বাগত জানাবেন।

Leave a Reply

%d bloggers like this: