ছেলে হলে বিক্রি করতেন, মেয়ে হওয়ায় আছড়ে মারলেন বাবা

মাত্র একমাস বয়স মীমের। কন্যাশিশু হয়ে জন্ম নেওয়াটাই কাল হলো তার। শিশুটির নিথর দেহ পড়ে আছে বারান্দায়। তাকে ঘিরে চলছে মায়ের আহাজারি আর বুকফাটা হাহাকার। জন্মদাতার রোষাণলে পড়ে এভাবে জীবনটাই দিতে হবে কেউ ভাবেনি।
কন‌্যা হয়ে জন্ম নেওয়ায় বিরক্ত ছিলেন বাবা কামাল হোসেন। আশা ছিলো ছেলে সন্তান হবে। নিঃসন্তান এক ধনী পরিবারে বিক্রির কথা চূড়ান্তও হয়ে ছিলো। কিন্তু হয়েছে মেয়ে সন্তান। এতে অনেকগুলো টাকা হাতছাড়া হয়ে যায় তার।
এ নিয়ে স্ত্রী খাদিজাকে শারীরিক ও মানসিকভাবে নির্যাতন করে আসছিলেন কামাল। মেয়েকে আদর-ভালোবাসা দূরে থাক, সহ‌্যই হতো না। তাই মেয়ের কান্নায় বিরক্ত হয়ে মাটিতে আছাড় দিয়ে বসলেন বাবা কামাল। এতে ঘটনাস্থলেই শিশুটির মৃত্যু হয়।
শনিবার (২১ নভেম্বর) দুপুরে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জের মুড়াপাড়া ইউনিয়নের মাছিমপুরে পাড়াগাঁও বড় মসজিদ এলাকায় ঘটে এ ঘটনা। মাছিমপুরের বাবুল হোসেনের ছেলে কামাল হোসেন।
জানা যায়, দুই বছর আগে পাড়াগাঁও গ্রামের হারুন অর রশিদের মেয়ে খাদিজা আক্তারকে বিয়ে করেন কামাল হোসেন। তিনি আড়াইহাজার উপজেলার ছনপাড়া এলাকার একটি ভাতের হোটেলের কর্মচারী। পুত্র সন্তান হলে নিঃসন্তান এক ধনী পরিবারের কাছে বিক্রি করবে বলে চুক্তি করে কামাল।
গত ২৭ অক্টোবর খাদিজা আক্তার একটি কন্যা সন্তান জন্ম দেন। এরপর থেকে কামাল হোসেন তার স্ত্রীকে শারিরিক ও মানসিকভাবে নির্যাতন করে আসছিলেন।
শিশুটির মা খাদিজা বেগম জানান, বিয়ের পর থেকেই কামাল হোসেন কোনো কাজকর্ম করেন না। তবে মাঝে মাঝে একটি হোটেল অস্থায়ীভাবে কাজ করেন। মীম জন্মের আগে থেকেই কামাল হোসেন ছেলে সন্তানের প্রত্যাশা করে আসছিলেন। পরে মেয়ে সন্তান জন্ম নেয়ার পর থেকে কামাল হোসেন ক্ষিপ্ত ছিলেন। মীম জন্মগ্রহণের পর থেকেই কামাল হোসেন তার স্ত্রী খাদিজা বেগমের ওপর নির্যাতন করে আসছিল। এ ছাড়া বিভিন্ন কামাল হোসেন তার মা জোসনা বেগমকেও বিভিন্ন সময় মারধর করতেন।
খাদিজা বেগম আরো বলেন, শনিবার ভোর ৬টার দিকে পাড়াগাঁও এলাকার বাড়িতে শিশু মীম আমার কোলে থেকে কান্না করছিল। এ সময় বাবা কামাল হোসেন শিশুটির কান্নার শব্দে আমার সঙ্গে রাগারাগি করে। একপর্যায়ে কামাল হোসেন ক্ষিপ্ত হয়ে শিশু মীমকে আমার কোল নিয়ে ছিনিয়ে নিয়ে খাটে আছড়ে হত্যা করেন। পরে পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা কামাল হোসেনকে আটক করার আগেই তিনি পালিয়ে যান।
ভুলতা পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ আনিছুর রহমান ঘটনার সত‌্যতা নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন , সন্তানের কান্নায় বিরক্ত হয়ে তাকে আছাড় মেরে হত্যা করেছেন বাবা। এমন অভিযোগ পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে শিশুর লাশটি উদ্ধার করা হয়েছে। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে।’
এলাকাবাসীর বরাত দিয়ে পুলিশ আরও জানায়, ঘটনার পর থেকে কামাল হোসেন পলাতক রয়েছেন। এ ব্যপারে মামলার প্রস্তুতি চলছে বলেও জানায় পুলিশ।

Leave a Reply

%d bloggers like this: