টেকনাফ চেকপোস্টে তরুণীর বিরুদ্ধে বিজিবির মানহানি মামলার শুনানি আজ

কক্সবাজারের টেকনাফ চেকপোস্টে তল্লাশির নামে মিথ্যা ধর্ষণের অভিযোগ আনা এক তরুণীর বিরুদ্ধে বিজিবির করা ১০০ কোটি টাকার মানহানির মামলার শুনানি আজ রোববার (২২ নভেম্বর) অনুষ্ঠিত হবে।
কক্সবাজার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে এ শুনানি হবে। ওই মানহানি মামলা রুজু করার পরবর্তী অগ্রগতি সম্পর্কে অবহিত করতে শনিবার (২১ নভেম্বর) রাতে বিজিবি এ তথ্য জানায়।
ধর্ষণের অভিযোগকে বাস্তবতা বিবর্জিত ও মিথ্যা উল্লেখ করে বিজিবি জানায়, টেকনাফ ব্যাটালিয়ন (২ বিজিবি) এর অধীন দমদমিয়া বিওপিতে কর্মরত জেসিও-৭৮৩৬ নায়েব সুবেদার মোহাম্মদ আলী মোল্লা ও তার সঙ্গীয় একটি চৌকস টহলদল গত ৮ অক্টোবর দমদমিয়া চেকপোস্টে সরকারি নিয়ম মেনে তল্লাশি কার্যক্রমে নিয়োজিত ছিল। পরবর্তীতে সকাল সাড়ে দশটায় লেদা থেকে টেকনাফগামী সিএনজি চালিত অটোরিকশা চেকপোস্টের কাছে এলে সেটি তল্লাশির জন্য থামানো হয়। অটোরিকশায় পাঁচজন যাত্রী ছিলেন। সব যাত্রী তল্লাশিতে সহযোগিতা করলেও ফারজানা আক্তার (২৬) নামে ব্লাস্ট এনজিওর এক কর্মী অটোরিকশা থেকে নামতে অপারগতা প্রকাশ করেন।
এসময় তিনি বিজিবি টহলদলের ওপর ক্ষিপ্ত মনোভাব প্রকাশ করে তল্লাশির কারণ জানতে চান।
তাকে সম্ভাব্য ইয়াবা পাচারকারী হিসেবে সন্দেহ করে বিজিবি টহলদল। সারা দেশে মাদকের ভয়াবহ বিস্তার রোধে সন্দেহভাজন ইয়াবা পাচারকারী হিসেবে ওই নারীকে তল্লাশি কক্ষে মহিলা সৈনিকরা তল্লাশি করেন।
এসময় ওই নারীর সঙ্গে সরকারি নিয়মের বাইরে কোনো ধরনের অপেশাদার আচরণ করা হয়নি। পরবর্তীতে ওই ব্যক্তির কাছে কোনো প্রকার মাদকদ্রব্য বা অবৈধ পণ্য না পাওয়ায় সাড়ে ১০টায় তাকে সসম্মানে দমদমিয়া চেকপোস্ট থেকে ছেড়ে দেওয়া হয়।
পরদিন বেলা ১১টায় বিজিবি চেকপোস্টে দায়িত্বরত প্রহরীরা তাকে ধর্ষণ করেছে উল্লেখ করে টেকনাফ থানায় মামলা করতে যান। অভিযোগের পক্ষে প্রয়োজনীয় প্রমাণাদি দেখাতে না পারায় টেকনাফ থানা পুলিশ তার মামলা রেকর্ড করেনি।
সেখান থেকে গিয়ে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে ধর্ষিতা হিসেবে কক্সবাজার সদর হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে ভর্তি হয়ে চিকিৎসাধীন ছিলেন।
বিজিবির অভিহিতকরণ প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ফারজানা আক্তার চিকিৎসাধীন থাকাবস্থায় ১১ অক্টোবর জাতীয় পত্রিকা দৈনিক যুগান্তরে ‘কক্সবাজারে চেকপোস্টে ব্লাস্ট কর্মীকে ধর্ষণ’ শিরোনামে সংবাদ প্রকাশিত হয়। সংবাদটি বিজিবি’র বিরুদ্ধে জনমনে নেতিবাচক মনোভাব তৈরি করার পাশাপাশি বিজিবির শতবর্ষের অর্জিত সুনাম ও ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করে। দৈনিক যুগান্তরে প্রকাশিত সংবাদটি অবলোকন করে বহুল প্রচারিত অনলাইন পত্রিকা বিডিনিউজ২৪ডটকম ও বার্তা বাজার পত্রিকাতে মিথ্যা ও ভিত্তিহীন সংবাদের বিষয়ে প্রচুর আলোচনা হয়। ১৩ অক্টোবর ‘দৈনিক যুগান্তর’ পত্রিকাটি ‘কক্সবাজারে চেকপোষ্টে ব্লাস্ট কর্মীকে ধর্ষণ’ শিরোনামে ভুল ও মিথ্যা সংবাদ প্রকাশের জন্য দুঃখ প্রকাশ করে।’
বিজিবির পক্ষ থেকে বলা হয়, ‘প্রকাশ্য দিবালোকে অসংখ্য যানবাহন ও যাত্রীর উপস্থিতিতে দমদমিয়া বিজিবি চেকপোস্টে সকাল সাড়ে ১০ টা থেকে ১০ টা ৩৬ মিনিট অর্থাৎ ৬ মিনিটে একজন নারীর ধর্ষিত হওয়ার বিষয়টি সম্পূর্ণরুপে বাস্তবতাবিরোধী একটি দাবি। ওই নারী নিজের ব্যক্তিগত স্বার্থ হাসিলের জন্য ‘উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে’ এবং কর্মস্থলে যাতায়াতের সুবিধার জন্য গাড়ি ব্যবহারের সুযোগ গ্রহণের উদ্দেশ্যকে অধিক জোড়ালো করতে সরকারি বাহিনীর সদস্যদের বিরুদ্ধে মিথ্যা অপবাদ ও অভিযোগ করেছেন। জনসমক্ষে এবং মিডিয়ার সহানুভূতিকে চতুরতার মাধ্যমে নেতিবাচকভাবে ব্যবহার করে বিজিবির মতো পেশাদার ও স্বনামধন্য বাহিনীকে হেয় করার অপচেষ্টা করেছেন। বিষয়টি ইতিমধ্যে টেকনাফ ব্যাটালিয়নের অভ্যন্তরীণ তদন্তে প্রমাণিত হয়েছে। ’
ভাবমূর্তি ক্ষুন্নের অপূরণীয় ক্ষতির কারণে ফারজানা আক্তারের বিরুদ্ধে গত ১০ নভেম্বর বিজিবি কর্মকর্তা মোহাম্মদ আলী মোল্লা বাদী হয়ে সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট, আদালত নং-০৪, সদর, কক্সবাজার এ দণ্ডবিধি ১৮৬০ এর ৫০০ ধারা মোতাবেক একটি ফৌজদারি মামলা দায়ের করেন বলে জানায় বিজিবি।
সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তামান্না ফারাহ মামলাটির প্রয়োজনীয় তদন্ত করে প্রতিবেদন সাত কার্যদিবসের মধ্যে আদালতে দাখিল করার জন্য ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা, টেকনাফ মডেল থানা, টেকনাফকে ইতিমধ্যে নির্দেশ প্রদান দিয়েছেন। রবিবার মামলার শুনানির দিন ধার্য করা হয়েছে।
বিজিবি বলছে, সরকারি কর্তব্য পালনকালীন দায়িত্বরত সৈনিকের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগের প্রেক্ষিতে রুজুকৃত মামলাটি নিঃসন্দেহে একটি ন্যায়সঙ্গত মামলা। পাশাপাশি মামলাটি সরকারি বাহিনীর ঐতিহ্য ও সুনাম রক্ষার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ বিধায় বর্ণিত মামলার শুনানি এবং পূর্ণ বিচারকার্য সম্পাদনে সংশ্লিষ্ট আদালত সব কিছুর ঊর্ধ্বে থেকে দায়িত্ব পালন করবে বলে আশা প্রকাশ করেছে বিজিবি।

Leave a Reply

%d bloggers like this: