1. editor.barta52@gmail.com : সম্পাদক : সম্পাদক ও প্রকাশক
  2. kamrancox@gmail.com : Amirul Islam Md Rashed : Amirul Islam Md Rashed

ইন্সপেক্টর সোহেল রানাকে কেন পুলিশ ধরেনি?

  • Update Time : সোমবার, ৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ২৮ Time View

ই-অরেঞ্জের হোতা বনানী থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত) সোহেল রানা ভারতে বিএসএফ-এর হাতে ধরা পড়লো৷ কিন্তু বনানী বা গুলশান থানা তাকে কেন ধরেনি? প্রশ্ন উঠেছে, পুলিশই কি তাহলে তাকে পালিয়ে যেতে সহায়তা করেছে?
ই-অরেঞ্জের বিরুদ্ধে এক হাজার ১০০ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে একজন গ্রাহক তাহেরুল ইসলাম আদালতে মামলা করেন গত ১৭ আগস্ট৷ অন্য আসামিরা হলেন, ই-অরেঞ্জের মালিক সোনিয়া মেহজাবিন, তার স্বামী মাসুকুর রহমান, আমানউল্লাহ, বিথী আক্তার ও কাউসার আহমেদ৷ এরপর ৩১ আগস্ট ইশতিয়াক হোসেন টিটু নামে আরেকজন ভুক্তভোগী সোহেল রানাসহ ই-অরেঞ্জের ১০ জনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করেন৷
১৮ আগস্ট আদালত তাহেরুল ইসলামের মামলার ছয় আসামির দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেন৷ এই মামলায় এরই মধ্যে সোনিয়া মেহজাবিন, মাসুকুর রহমান ও আমানুল্লাহকে আটক করে কারাগারে পাঠানো হয়েছে৷ গুলশান থানায় করা এ মামলায় তাদের আটক করা হলেও ইন্সপেক্টর সোহেল মুক্তই থাকেন৷ তার কর্মস্থল বানানী থানায় তিনি গত বৃহস্পতিবার পর্যন্ত নিয়মিত ডিউটি করেছেন৷ এমনকি এই সময়ে তার বিরুদ্ধে কোনো বিভাগীয় ব্যবস্থাও নেয়া হয়নি৷
মামলা ও দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা নিয়ে ইন্সপেক্টর সোহেল রানা কমপক্ষে ১৬ দিন তার কর্মস্থলে থেকে নিয়মিত ডিউটি করেছেন৷ এরপর কোনো ছুটি না নিয়েই বাংলাদেশ ছেড়ে ভারতে পালিয়ে যান৷ ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ) তাকে ভারত নেপাল সীমান্ত থেকে আটক করে ৩ সেপ্টেম্বর৷
সেখানে গ্রেপ্তার হওয়ার পর তাকে রোববার সাসপেন্ড করেছে পুলিশ সদর দপ্তর৷ সেটাও প্রতারণার মাধ্যমে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে নয়, অবৈধভাবে দেশত্যাগের প্রমাণ পাওয়ায়৷ আর এখন পুলিশ বলছে তাকে দ্রুত ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করা হচ্ছে৷ কিন্তু যতই দ্রুত ফেরত আনার কথা বলা হোক না কেন ভারতে তার মামলা নিস্পত্তি এবং সাজা হলে তা ভোগ করার আগ পর্যন্ত তাকে ফিরিয়ে আনার সুযোগ নেই৷
ইন্সপেক্টর সোহেল রানাকে গ্রেপ্তার না করার পক্ষে এখন নানা অজুহাত দেখাচ্ছেন পুলিশের দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা৷ ইন্সপেক্টর সোহেল রানার চাকরি ছিলো বনানী থানায়৷ আর মামলা হয়েছে গুলশান থানায়৷ এই দুইটি থানা ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) গুলশান বিভাগের অধীন৷ ওই বিভাগের ডেপুটি পুলিশ কমিশনার (ডিসি) আসাদুজ্জামান ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘গত বৃহস্পতিবার পর্যন্ত বনানী থানায় ডিউটি করেছেন ইন্সপেক্টর সোহেল রানা৷ তিনি যে পালিয়ে যাবেন তা আমরা বুঝব কীভাবে৷”
মামলা ও দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা থাকার পরও সে পালালো কীভাবে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘‘সে তো বৈধভাবে যায়নি৷ বৈধভাবে গেলে তো আমরা আটকাতে পারতাম৷ অবৈধভাবে গিয়েছে বলেই তো তাকে বিএসএফ আটক করেছে৷”
তাকে তাহলে আগেই গ্রেপ্তার বা বিভাগীয় ব্যবস্থার আওতায় কেন আনা হলো না? এই প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘‘মামলার তদন্ত চলছে৷ সে একজন সরকারি কর্মকর্তা৷ তাকে গ্রেপ্তার করার কিছু নিয়ম আছে৷ নিয়মের বাইরে তো আমরা কিছু করতে পারি না৷ আর মামলার তদন্ত চলাকালে তো আমরা কাউকে অপরাধী বলতে পারি না৷”
তিনি জানান, সোহেল রানা বৃহস্পতিবার (২ সেপ্টেম্বর) পর্যন্ত অফিস করে শুক্রবার পালিয়ে যায়৷ আর মামলা হয়েছে বৃহস্পতিবার রাতে৷ আগের মামলাগুলোর এজাহারে তার নাম ছিল না বলে দাবি করেন তিনি৷
গুলশান থানার ওসি মো. আবুল হাসান দাবি করেন, ‘‘মামলার তদন্ত চলছিল৷ তদন্ত শেষ হওয়ার আগে কিছু করার ছিল না৷ তবে ২ অক্টোবর রাতে একটি মামলা হয় থানায়৷ সেই মামলায় তাকে আসামি করা হয়৷ ওই মামলার খবর পেয়েই তিনি রাতে থানা থেকে পালিয়ে যান৷”
রানার পালিয়ে যাওয়া মামলা ও গ্রেপ্তার না করার বিষয়ে জানতে চাইলে বলেন, ‘‘এ বিষয়ে আমি কিছু বলতে পারব না৷”
ই-অরেঞ্জের কাছে সাড়ে আট লাখ টাকা প্রতারণার শিকার একজন মাহফুজুর রহমান অভিযোগ করেন, ‘‘আমরা শুরুতেই গুলশান থানায় মামলা করতে গেলে ওসি সাহেব মামলাই নিতে চাননি৷ পরে মাশরাফি ভাই ফোন করায় মামলা নেওয়া হয় তবে ইন্সপেক্টর সোহেল রানার নাম বাদ দিয়ে৷ তবে তিনি পালানোর আগে ৩১ আগস্ট তাকে আসামি করে আরেকটি মামলা করি৷”
পুলিশের সাবেক এআইজি সৈয়দ বজলুল করিম মনে করেন কিছু পুলিশ সদস্যের সহায়তায়ই ইন্সপেক্টর সোহেল রানা পালিয়েছে৷ তিনি বলেন, ‘‘এখানে শত শত কোটি টাকা আত্মসাৎ হয়েছে৷ পুলিশের একজন ইন্সপেক্টর জড়িত এটা কেউ জানত না সেটা অসম্ভব৷ এখানে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের দায় আছে, তারা মনিটরিং-এ ব্যর্থ হয়েছেন৷ তার সাথে আরো কেউ কেউ জড়িত আছে৷ তারাই তাকে পালাতে সহায়তা করেছেন৷”

Share on your Facebook

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News .....
© All rights reserved Samudrakantha © 2019
Site Customized By Shahi Kamran