1. samudrakantha@gmail.com : সম্পাদক : সম্পাদক ও প্রকাশক
  2. aimrashed20@gmail.com : Amirul Islam Rashed : Amirul Islam Rashed

অর্ধেক যাত্রীতে চলবে গাড়ি, বাড়ছে না ভাড়া: ভাড়া না বাড়ালে অর্ধেক সিটে চলবে না চট্টগ্রামের গণপরিবহন, মালিকদের সিদ্ধান্ত

  • Update Time : বুধবার, ১২ জানুয়ারী, ২০২২
  • ৩১ Time View

আগামী শনিবার (১৫ জানুয়ারি) থেকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে অর্ধেক যাত্রী নিয়ে সড়কে বাস চলাচল করবে। তবে এ ক্ষেত্রে নতুন করে ভাড়া বাড়ানো হয়নি। বিদ্যমান ভাড়ায় যাত্রী পরিবহন করবেন বাস মালিকরা।
বুধবার (১২ জানুয়ারি) দুপুরে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) চেয়ারম্যান নূর মোহাম্মদ মজুমদার অংশীজনদের সঙ্গে বৈঠক শেষে গণমাধ্যমকর্মীদের এসব তথ্য জানান।
গত সোমবার মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে জারি করা প্রজ্ঞাপনে করোনা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে আনতে ১৩ জানুয়ারি থেকে মোট আসনের অর্ধেক যাত্রী নিয়ে বাস চলাচলের নির্দেশনা দেওয়া হয়।
তবে এ নির্দেশনার পর থেকেই ভাড়া বাড়ানোর জন্য সরকারের ওপর চাপ দেওয়া শুরু করেন বাস মালিকরা। এ পরিস্থিতিতে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) প্রধান কার্যালয় বনানীতে আজ (১২ জানুয়ারি) দুপুরের পর সংশ্লিষ্ট অংশীজনদের নিয়ে বৈঠকে বসে বিআরটিএ। ওই বৈঠকে, বাসভাড়া না বাড়িয়ে যাত্রী পরিবহনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।
বিআরটিএ চেয়ারম্যান নূর মোহাম্মদ মজুমদার বলেন, বৈঠকে পরিবহন মালিক এবং শ্রমিক সংগঠনের শীর্ষ নেতারা প্রস্তাব করেছেন, বিধিনিষেধ চলাকালে বাস ও মিনিবাসে শতভাগ যাত্রী পরিবহন করা হলে মালিকদের লোকসান গুনতে হবে না। ৫০% যাত্রী পরিবহন করা হলে রাজধানীতে পরিবহন সংকট চরম আকার ধারণ করবে ও যাত্রীদের দুর্ভোগ সীমাহীন পর্যায়ে পৌঁছাবে। এ অবস্থায় বাস ও বাস টার্মিনালে শতভাগ স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করে এখন যেভাবে বাস ও মিনিবাসে যাত্রী পরিবহন করা হচ্ছে সেভাবে শতভাগ যাত্রী পরিবহন করা উচিত।
বিআরটিএ চেয়ারম্যান বলেন, পরিবহন মালিক ও শ্রমিক প্রতিনিধিদের এ প্রস্তাব সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট নীতিনির্ধারকদের কাছে পাঠানো হবে। তারপর এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হবে।
নূর মোহাম্মদ মজুমদার বলেন, এখন বাস ভাড়া বাড়ানো যৌক্তিক হবে না। কারণ গত নভেম্বর মাসে জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির পরিপ্রেক্ষিতে বাসে যাত্রী পরিবহনের ভাড়া বাড়ানো হয়েছে। এ বিষয়টি নিয়ে পরিবহন মালিক ও শ্রমিক নেতাসহ সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে আমাদের ব্যাপক আলোচনা হয়েছে। তারা সবশেষে একমত হয়েছেন যে ভাড়া বাড়ানো হলে যাত্রীদের ওপর বেশি চাপ তৈরি করা হবে এবং এটি এ মুহূর্তে বাড়ানো যৌক্তিক হবে না।
বৈঠকে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক সমিতি, বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনসহ বিভিন্ন সংগঠনের প্রতিনিধিরা বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।
এদিকে, ওমিক্রন ঠেকাতে ১১ দফা নির্দেশনানুযায়ী ভাড়া না বাড়ালে অর্ধেক যাত্রী নিয়ে গণপরিবহন চালানোর সরকারি সিদ্ধান্ত মানতে নারাজ চট্টগ্রামের গণপরিবহন মালিকরা।
তাদের দাবি, অর্ধেক যাত্রী নিয়ে গাড়ি চালাতে হলে ভাড়ার হার অন্তত ৬০ শতাংশ বাড়াতে হবে। নইলে গণপরিবহন বন্ধ করে দেওয়ারও ইঙ্গিত দিচ্ছেন তারা।
চট্টগ্রামের গণপরিবহন মালিকরা বলছেন, এর আগেও অর্ধেক যাত্রী নিয়ে গাড়ি চালানোর ক্ষেত্রে বাড়তি ভাড়া আদায় করা হয়েছিল। অথচ এ ব্যাপারে এবার সরকার কোন নির্দেশনা দেয়নি। ডিজেলের দাম বাড়ানোর কারণে করোনার স্বাভাবিক পরিস্থিতিতে এক দফা ভাড়া বাড়ানো হলেও নির্দেশনা মেনে অর্ধেক যাত্রী নিয়ে গাড়ি চালাতে গেলে লোকসানে পড়তে হবে। এর আগে লকডাউনে মাসের পর মাস গাড়ি বন্ধ রেখে লোকসান গুণতে হয়েছিল। এভাবে লোকসান দিয়ে আর গাড়ি চালানো সম্ভব নয় বলে সাফ জানিয়েছেন তারা।
অর্ধেক যাত্রীতে চলবে গাড়ি, বাড়ছে না ভাড়া
চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পরিবহন মালিক গ্রুপের মহাসচিব বেলায়েত হোসেন বেলাল সিভয়েসকে বলেন, আমরা আর কত লোকসান দেবো? ডিজেলের দাম বাড়ার কারণে এর আগে এক দফা ভাড়া বেড়েছে। তবে আগের নিয়মে অর্ধেক যাত্রী নিয়ে সেবা দিতে গেলে স্বাভাবিকভাবে ভাড়া আরো বাড়বে। না হয় আমাদের লোকসান গুণতে হবে। লোকসান গুণে তো আর গাড়ি চালানো সম্ভব না। তাই ভাড়া বাড়ানোর বিষয়ে কোন সিদ্ধান্ত না আসলে গণপরিবহন মালিকরা নিজেরাই গাড়ি বের করবেন না।
এদিকে চট্টগ্রাম সড়ক পরিবহন মালিক গ্রুপের মহাসচিব মঞ্জুরুল আলম মঞ্জু সিভয়েসকে বলেন, সরকারি বিধি নিষেধের প্রতি আমরাও আন্তরিক। এর আগে লকডাউনের সময় প্রতি সিটে একজন করে যাত্রী বহন করে ৬০ শতাংশ ভাড়া বাড়ানো হয়। এতে মালিকরা ক্ষতিগ্রস্ত হলেও দেশের স্বার্থে তা মেনে নিয়েছিল। এবারও সকল প্রকার স্বাস্থ্য বিধি মেনে গণপরিবহন সচল রাখতে হলে পূর্বের সিদ্ধান্ত কার্যকর করে সিট প্রতি একজন ও ভাড়া ৬০ শতাংশ বাড়ানোর সিদ্ধান্তে আসতে হবে। অন্যথায় রাস্তায় গাড়ি নামানো আমাদের পক্ষে সম্ভব নয়। আমরা চাই না সাধারণ মানুষ ভোগান্তিতে পড়ুক। তাই সরকারের উচিত আমাদের দিকটাও বিবেচনা করা।
এর আগে গতকাল নির্দেশনার পর থেকেই ভাড়া বাড়ানোর জন্য সরকারের ওপর চাপ দেওয়া শুরু করেন বাস মালিকরা। এ পরিস্থিতিতে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) দুপুরের পর সংশ্লিষ্ট অংশীজনদের নিয়ে বৈঠকে বসে। ওই বৈঠকে, বাসভাড়া না বাড়িয়ে যাত্রী পরিবহনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

Share on your Facebook

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News .....

© All rights reserved Samudrakantha © 2019

Site Customized By Shahi Kamran